দিল্লী দূর অস্ত

দিল্লী দূর অস্ত

সম্রাট আলাউদ্দিন খিলজী দিল্লীর একপ্রান্তে একটি মসজিদ তৈরি করেছিলেন। তাঁর মৃত্যুর দীর্ঘকাল পরে একদা এক আউলিয়া এলেন সেই মসজিদে। ফকির নিজামউদ্দিন আউলিয়া। স্থানটি তাঁর পছন্দ হলো। সেখানেই রয়ে গেলেন এই মহাপুরুষ। ক্রমে প্রচারিত হলো তাঁর পূণ্যখ্যাতি; অনুরাগী ভক্তসংখ্যা বেড়ে উঠল দ্রুত বেগে।

স্থানীয় গ্রামের জলাভাবের প্রতি দৃষ্টি আকৃষ্ট হলো। মনস্থ করলেন খনন করবেন একটি দীঘি। যেখানে তৃষ্ণার্ত পাবে জল, গ্রামের বধূরা ভরবে ঘট, নামাজের পূর্বে ওযু করে পবিত্র হয়ে মসজিদে প্রবেশ করবে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। কিন্তু সংকল্পে বাধা পড়ল অপ্রত্যাশিতভাবে। উদ্দীপ্ত হলো রাজরোষ। প্রবল পরাক্রান্ত সুলতান  গিয়াসউদ্দিন তোগলকের বিরক্তিভাজন হলেন এক সামান্য ফকির, নিজামউদ্দিন আউলিয়া।

গিয়াসউদ্দিন তোগলকের দৃঢ়তা ছিল, শক্তি ছিল, রাজ্যশাসনের দক্ষতা ছিল। কিন্তু সে অনুপাতে তার নিষ্ঠুরতাও ছিল ভয়াবহ। এই দক্ষ ও নিষ্ঠুর সুলতানের প্রয়োজন পরল নতুন নগরী নির্মাণের। বহি:শত্রুদের আক্রমণ ঠেকাতে প্রাচীরবেস্টিত এক নতুন রাজধানী।ফকির সুলতানে সংঘর্ষ ঘটল এই  নগরী নির্মাণকে কেন্দ্র করে।

নিজামউদ্দিন আউলিয়ার দীঘি কাটাতে মজুর চাই প্রচুর। গিয়াসউদ্দিনের  নগর তৈরি করতেও মজুর আবশ্যক সহস্র সহস্র। অথচ দিল্লীতে মজুরের সংখ্যা অত্যন্ত পরিমিত, দু’জায়গায় প্রয়োজন মিটানো অসম্ভব। সুলতান চাইলেন মজুরেরা তার কাজ আগে শেষ করবে, ততক্ষণ অপেক্ষা করুক ফকিরের খয়রাতি খনন। কিন্তু রাজার জোর অর্থের সেটার পরিমাপ করা যায়। ফকিরের জোর হৃদয়ের, তার সীমা নেই। মজুরেরা বিনা  মজুরিতে দলে দলে কাটতে থাকলো ফকিরের দীঘি। সুলতান হুংকার ছেড়ে বললেন, তবে রে –।

কিন্তু তার ধ্বনি আকাশে মিলাবার আগেই এত্তালা এলো আশু কর্তব্যের। বাংলাদেশে বিদ্রোহ দমন করতে সুলতানকে ছুটতে হলো সৈন্য সামন্ত নিয়ে। 

শাহজাদা মোহম্মদ তোগলক রইলেন রাজধানীতে রাজ-প্রতিভূরূপে। শাহজাদা নিজামউদ্দিন আউলিয়ার অনুরাগীদের অন্যতম। তাঁর আনুকূল্যে দিবারাত্রি খননের ফলে পরহিতব্রতী আউলিয়ার জলাশয় জলে পূর্ণ হলো অনতিবিলম্বে। গিয়াসউদ্দিন তোগলকের  নগরী তোগলকাবাদ রইলো অসমাপ্ত।

অবশেষে সুলতানের ফেরার সময় হলো নিকটবর্তী। প্রমাদ গণনা করলেন আউলিয়ার ভক্তরা।  তারা ফকিরকে দিল্লি ত্যাগ করে পলায়নের পরামর্শ দিল। ফকির মৃদু হাস্যে তাদের নিরস্ত করলেন, – দিল্লী দূর অস্ত। দিল্লী অনেক দূর ।

প্রত্যহ যোজন পথ অতিক্রম করছে সুলতান। নিকট হতে নিকটতর হচ্ছে রাজধানীর পথে। প্রত্যহ ভক্তরা অনুনয় করে ফকিরকে। প্রত্যহ একই উত্তর দেন ফকির নিজামউদ্দিন আউলিয়া – দিল্লী দূর অস্ত।

সুলতানের নগর প্রবেশ হলো আসন্ন, আর মাত্র একদিনের পথ বাকি। ব্যাকুল হয়ে শিষ্য প্রশিষ্যরা  অনুনয় করল সন্ন্যাসীকে, এখনও সময় আছে এইবেলা পালান। গিয়াসউদ্দিনের ক্রোধ এবং নিষ্ঠুরতা অবিদিত ছিলনা কারো কাছে, ফকিরকে হাতে পেলে কি দশা হবে তার কথা কল্পনা করে সবাই ভয়ে শিউরে উঠলো বারংবার। স্মিতহাস্যে সেদিনও উত্তর দেন বিগতভয় সর্বত্যাগী ফকির – দিল্লী হনুজ দূর অস্ত।

দিল্লী এখনও অনেক দূর । বলে হাতের তসবিহ ঘোরাতে লাগলেন নিশ্চিন্ত ঔদাসিন্যে।

নগরপ্রান্তে পিতার অভ্যর্থনার জন্য পুত্র মোহম্মদ তৈরি করেছে মহার্ঘ মণ্ডপ। কিংখাবের শামিয়ানা। জরিতে, জহরতে, ঝলমল। বাদ্যভাণ্ড, লোকলস্কর, আমীর-ওমরাহ মিলে সমারোহের চরমতম আয়োজন। বিশাল ভোজের ব্যবস্থা, ভোজের পরে হস্তিযুথের প্রদর্শনী প্যারেড।

মণ্ডপের কেন্দ্রস্থলে ঈষৎ উন্নত ভূমিতে সুলতানের আসন, তার ঠিক পাশেই তার উত্তরাধিকারীর। পরদিন গোধূলি বেলায় সুলতান প্রবেশ করলেন অভ্যর্থনা মণ্ডপে। প্রবল আনন্দোচ্ছ্বাসের মধ্যে আসন গ্রহণ করল  সুলতান । সিংহাসনের পাশে বসালো নিজ প্রিয়তম পুত্রকে। কিন্তু সে মোহম্মদ নয়, তার অনুজ।

ভোজনান্তে অতি বিনয়াবনত কণ্ঠে মোহম্মদ অনুমতি প্রার্থনা করলেন সম্রাটের। জাহাঁপনার হুকুম হলে এবার হাতীর কুচকাওয়াজ শুরু হয়, হস্তিযুথ নিয়ন্ত্রণ করবে মোহম্মদ নিজে। গিয়াসউদ্দিন অনুমোদন করলেন স্মিতহাস্যে।

মোহম্মদ মণ্ডপ থেকে নিষ্ক্রান্ত হলো ধীর শান্ত পদক্ষেপে।

কড়্‌ কড়্‌ কড়র কড়াৎ।

(চলবে)

(যাযাবরের দৃষ্টিপাত থেকে নেয়া)

৭২৭ বার দেখা হয়েছে

৪ টি মন্তব্য : “দিল্লী দূর অস্ত”

  1. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    যাযাবর এর দৃষ্টিপাত একটা অসাধারণ বই। তথাকতিত মুসলিম দের ভারত শাসনের রূপটাও স্পষ্ট হয়।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
    • ড. রমিত আজাদ (৮২-৮৮)

      আমরা মুসলিমরা ভারত খুব ভালো শাসন করেছিলাম। ভারত উপমহাদেশ আমাদের শাসনআমলেই উন্নতির শিখরে পৌছেছিল। আজ সারা বিশ্বের পর্যটকরা ভারতে যা দেখতে যায় বা যা আজকের ভারতের রুলিং ক্লাস (উচ্চ বর্ণের হিন্দুরা)-রা বিদেশী পর্যটকদের দেখায় তা সবই মুসলমানদের কির্তী (তাজমহল থেকে শুরু করে কুতুব মিণার পর্যন্ত)। বৃটিশ শাসনআমলে ভারত শ্রিহীন হয়ে পরে। বিশ্বের সবচাইতে ধনী অন্চল, সবচাইতে দরিদ্র অন্চলে পরিণত হয়।

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।