একজন ঐশী এবং আমাদের সমাজ…!!!

ঐশী মেয়েটার তার বাবা-মা কে মেরে ফেলা নিয়ে অনেক তোলপাড়, আমি সাধারনত রাজনীতি, ভায়োলেন্স এই জিনিসগুলো এড়িয়ে যাই। কিন্তু আজ ঐশী কে দেখে নিজের কিছু ব্যাপার খুব মনে পড়তেসে। ঠিক এই মুহূর্তে আমি বুঝি ঐশী কেমন আছে, সবকিছু মুখে বলা যায়না। ঐশী যে ভুল করেছে সেটার ৭০ ভাগ দায় এই সমাজের ওর না।

একটা শিশু কখনোই খুনি হয়ে জন্মায় না,তাকে খুনি বানানো হয়। একটা ছেলে কখনোই বখাটে হয়না,তাকে সেটা বানানো হয়। পরিবারের অর্থ বাবার সাথে ছেলের রাতে খাবার টেবিল এ দেখা হওয়া আর ছেলে মেয়ের রেজাল্ট নিয়ে আর ১০ জনের কাছে গর্ব করা না।

৯৯ ভাগ বাবা-মা নিজেরাই জানেনা পরিবার কি,সন্তানদের শিখানো তো পরের কথা। যদিও মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সব সুখ তারা সন্তানকেই দেয়ার চেষ্টা করে। অবাক হলেও আমি মনে করি এই সমাজের ৯৯ ভাগ বাবা-মা মানসিকভাবে নিজেরাই সুস্থ না কারন একটা টিন-এজ এর ছেলেমেয়েকে যেসব বাবা-মা যখন নিজেদের ইচ্ছামত চালানোর চেষ্টা করে ঠিক ওই মুহূর্তে তারা জানেও না যে কতটা মানসিক ক্ষতি তারা সন্তানের করে ফেলতেসে যেটার কোন রিকভারি নেই।

প্রশ্ন হতে পারে তাহলে উপায় কি? আমি যেটা ফীল করি এবং আমার সন্তানদের সাথে করবো-
ছেলেমেয়েরা বুঝতে শিখে ৫-৬ বছর বয়সে, আর তাদের বিশাল একটা মানসিক পরিবর্তন আসে ১২-১৩ বছর বয়সে। ঠিক এই সময়ে তারা যেভাবে দুনিয়াকে বুঝতে শিখে তার পারসোনালিটি ঠিক সেইভাবেই গড়ে উঠে। এই বয়স পার হয়ে গেলে হাজার চেষ্টা করেও সেটাকে আর পুরোপুরি পরিবর্তন করা যায়না, হয়তো কমানো বা দমিয়ে রাখা যায় কিন্তু সুযোগ পেলে সেটা বের হয়ে আসে। আমার কথা হচ্ছে এই বাচ্চাগুলো কেন একা একা খারাপ জিনিসগুলো ফেইস করবে?

উঠতি বয়সে ইভ-টিজিং করা বন্ধুদের কাছে শিখার আগেই এই শব্দটা কেন বাসায় শিখানো হয়না,কেন বলা হয়না যে এইটার খারাপ দিকগুলো কতটা ভয়ঙ্কর? কেন ইয়াবা শব্দটা আমরা পেপারে দেখে শিখি? কেন ড্যান্স ফ্লোর এ আমাদের গিয়ে নাচতে হয়? পারিবারিক কোন অনুষ্ঠানে সবাই এক হয়ে নাচিনা কেন আমরা?

আমরা ছেলেমেয়েদের শুধু ভালো রেজাল্ট চাই, সার্টিফিকেট, মানুষ হলাম না জানোয়ার সেটা গৌণ ব্যাপার,ঢাকা শহরে এইরকম কমপক্ষে ১০০ ঐশী কে আমি নিজে চিনি যারা সপ্তাহে ৪-৫ দিন ড্যান্স ফ্লোর এ নাচানাচি করে, আমার সমবয়সী,ছোট এমনকি বড় ও। মজার ব্যাপার হল- অনেকের বাপ- মা ও এগুলোকে সাপোর্ট করে।

ইংলিশ মিডিয়ামে পড়া ঐশী কে নিয়ে সবাই হই হই করে ভাসায় ফেলতেসে, নিজের ছোট বোনটা বা ভাইটা সারাদিন কই থাকে কয়জন খোঁজ রাখেন মিলিয়ে নিন। কয়জন বাবা বা মা আছেন যারা তাদের ছেলেমেয়ে কাদের সাথে প্রেম করে বা ঘুরে বেরায় খোঁজ রাখেন? একজনের সাথে সম্পর্ক শুরু হওয়ার আগেই শেষ আবার কালকে নতুন, ফোনে কথা বলা, অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক আজকাল ডালভাত।

ভালোবাসার অর্থ বোঝার ক্ষমতা ইন্টার পাশ করা ছেলেমেয়ের কোনভাবেই হবেনা কারন এটা সম্ভব না, দুইদিনের বৈরাগী হয়ে প্রেম প্রেম খেলেই একেকজন মজনু-লাইলি হওয়া খুব সহজ, কিন্তু ওইটার জন্য ত্যাগ স্বীকার করা এত সহজ না।

সামাজিক অবক্ষয়গুলো আমাদের রক্তে এমনভাবে মিশে গেছে যে আমরা এখন সেইটাই ভুলে গেছি কোনটা অপরাধ আর কোনটা না? পারসোনালিটি এত সহজে অর্জন করা যায়না, এর জন্য সাধনা করতে হয়। আর যার এটা থাকে তাকে গিয়ে সবার কাছে হাত পাততে হয়না,চাওয়া মাত্রই হাজির হয়। পরিবার ই একমাত্র পারসোনালিটি গঠনের উৎস।

নিজের পরিবার কে গড়ে তুলুন, পরিবারে আপনার দায়িত্বটুকু সততার সাথে পালন করলে আমাদের আর কোন ঐশী কে দেখতে হবেনা।

৬৬১ বার দেখা হয়েছে

৪ টি মন্তব্য : “একজন ঐশী এবং আমাদের সমাজ…!!!”

  1. সিরাজ(১৯৯১-১৯৯৭)

    এই ঘটনার পর সবাইকেই দেখি ইংলিশ মিডিয়ামের দোষ দিয়ই যাচ্ছে। দোষ যে আমাদের বাবা,মার আছে বা সামাজিক মুল্যবোধ যে আমাদের দরকার সেটা কেউ বলেনা। মাদক এবং মাদকাশক্ত সব জায়গায় আছে। সেটা ইংলিশ মিডিয়াম বা সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় যেখানেই হোক না কেন। অবিভাবক হিসাবে আমাদের বেশি করে সচেতন হতে হবে। একটা ব্যাপার খেয়াল করেন। যিনি পুলিশ ইন্সপেকটর তার বেতন কত? সে যে অ্যাপার্টমেন্টে থাকে তার ভাড়াই তো কম করেও ২০হাজার টাকা। মেয়ের বেতন কমপক্ষে ১০হাজার টাকা। একজন ইন্সপেক্টরের কি ক্ষমতা আছে অ্যাপার্টমেন্টে থাকার?সরকারি হিসাবে তার বেতন সর্বোচ্চ ২৫হাজার টাকা। কিন্তু তার মাসিক ব্যায় ১লাখের নিচে না।তিনি কি বাবা বা শশুরের কাছ থেকে টাকা নিয়ে সংসার চালান? তাহলে তিনি তার মেয়েকে কি শিক্ষা দিবেন? আর মেয়ে তার বাবাকেই বা কিভাবে মানবে যেখানে বাবাই অধঃপতনে চলে গেছেন। ১০০%সহমত তোমার সাথে।


    যুক্তি,সঠিক তথ্য,কমন সেন্স এবং প্রমাণের উপর বিশ্বাস রাখি

    জবাব দিন
  2. মোকাব্বির (৯৮-০৪)

    রাফি লেখাতে ইংরেজী শব্দের ব্যবহার কমিয়ে অান। বেশ কিছু শব্দের চমৎকার বাংলা অাছে। কিছু কথ্য বাংলা শব্দকেও ঝেড়ে ফেলে দাও। মতামত বা বিশ্লেষণধর্মী লেখায় কথ্য শব্দ বর্জন করাই শ্রেয়।

    লেখার ফোকাস ভাল লেগেছে। হুজুগে বাঙালী তীর্থের কাকের মত বসে থাকে কবে নতুন মসলা তাদের নিরামিষ জীবনে এসে পড়বে। পুরুষ শাসিত সমাজে মেয়ের চরিত্র নিয়ে নাড়াচাড়া করাটা অামাদের অভ্যাস।

    তবে দুঃখ হলো অামি দেখতে পাচ্ছি অাইনের ফাঁক দিয়ে এই ঘটনারও সঠিক বিচার হবে না। দিনের শেষে এটি একটি জোড়া খুন। প্রাথমিক দৃষ্টিতে অভিযুক্ত কয়েকজন নাবালকের দ্বারা সংগঠিত। সাংবাদিকরা অনেক কিছু জানছেন বা বানাচ্ছেন যেগুলো কেউ জানার কথা না। কিশোর অপরাধীদের জন্য বিশেষ অাদালতের ব্যবস্থা থাকার কথা। জেল গুলো ঘেঁটে দেখো নাবালক সাজাপ্রাপ্ত অপরাধীর সংখ্যা কম নয় যাদের থাকার কথা কোণাবাড়ির কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে। ফলাফল যেটাই হোক সেটা সঠিক কিছু হবে না।


    \\\তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা
    অবুঝ শিশু হামাগুড়ি দিল পিতামাতার লাশের ওপর।\\\

    জবাব দিন
  3. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    পারিবারিক কোন অনুষ্ঠানে সবাই এক হয়ে নাচিনা কেন আমরা?

    :thumbup:


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  4. তাওসীফ হামীম (০২-০৬)
    অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক

    এইটার মানে কি?
    বারবার ঐশীর বাবা মায়ের কথা আসছে দেখলাম, ঘুরায়ে পেচায়ে কি বলা হইতে চাইতেছে যে দোষ তাদের? বা সমাজের? বা সমাজ ব্যবস্থার?


    চাঁদ ও আকাশের মতো আমরাও মিশে গিয়েছিলাম সবুজ গহীন অরণ্যে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।