জীবনের পথে পথে … …

জীবনে প্রথম কুয়াকাটা গিয়েছিলাম সেবার। বন্ধুরা মিলে দুটো দিন বেশ মজায় কাটে। কুয়াকাটার সৌন্দর্য্যের বর্ননা আমি দিব না। তবে কুয়াকাটা থেকে ফিরে আসার সময়ের একটা ঘটনা বলব। কুয়াকাটা থেকে ফেরার সময় গলাচিপা ফেরি মিস্ করে বাস দাড়িয়ে আছে অনেক্ষণ ধরে। মেজাজটা খুবই গরম। ফেরার সময় হাতে খুব বেশি টাকা ছিল না, তাই সবাই মিলে উঠেছিলাম লোকাল বাসে। এমনিতেই বাসের সাইজ এক্কেবারে মুড়ির টিন, তার উপর ভালই ভিড়। মেজাজ প্রচণ্ড গরম। তাই বাস থেকে নেমে ফেরির কাছাকাছি এসে দাড়ালাম। দেখি একটা লোক সাপের খেলা দেখাচ্ছে, পাশে ছোটখাট একটা জটলার মত। কিছুক্ষণ সময় কাটাতে সেখানেই গেলাম। ২/১ মিনিট দাড়ানোর পরেই হঠাৎ টের পেলাম যে কেউ একজন আমার পকেট মারার চেষ্টা করছে, মানে পিছনের পকেটে মানিব্যাগ বের করার চেষ্টা করছে। এমনিতেই মেজাজ প্রচণ্ড গরম, মনে মনে ঠিক করে ফেললাম “শালাকে আজ এমন মাইর দেব …” যেন কিছুই টের পাচ্ছি না এমন ভাবে সামনে তাকিয়ে থাকতে থাকতেই খপ করে ব্যাটার হাতটা ধরে ফেললাম … … সাথে সাথেই উল্টো ঘুরে ব্যাটার কলার ধরতে যাব এমন সময় … … এ কি !!! !!! এটাতো কোন হাত নয় … Just একটা লাঠি বলা যেতে পারে … …

খুলে বলছি ব্যাপারটা । যে লোকটা আমার পকেট ধরে টানছিলো, সে কোন পকেটমার নয়। অতি বৃদ্ধ একটা মানুষ, যার ডান হাতটায় একটা আঙ্গুলও নেই … … কথা বলার ভাষাও নেই , মানে বোবা। তাই পেটের দায়ে ভিক্ষা ভ্ন্নি অন্য কোন পথ খোলা নেই, আবার ভিক্ষা করার ক্ষেত্রে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্যে “মানুষকে খোঁচানো ছাড়া আর কোন উপায়ও নেই … …।” লোকটাকে ২ টাকার একটা নোট দিতে গিয়ে আবারও একটা ধাক্কা খেলাম … লোকটার বাম হাত বলেও কিছু নেই … … গলায় ঝোলানো একটা ব্যাগ … … তাতেই দিতে হল টাকাটা … … হায় সৃষ্টিকর্তা … … এ কি খেলা তোমার !!! !!! মানুষকে উপার্জনের সামর্থ দেও না সেটা দেখলাম; তাই বলে লোকটা ভিক্ষা করে খাবে, সেই সামর্থটাও তাকে দিলে না !!! !!! আমার ফেরি চলে আসল, আমি লোকটাকে পাশ কাটিয়ে ফেরিতে উঠলাম … … নিজের হাত দুটোর দিকে বার বার তাকাচ্ছিলাম … … নিজেকে আর কোন দিন এতটা ভাগ্যবান মনে হয়নি … … ফেরি পার হয়ে বাস আবার চলতে শুরু করল, লোকাল বাসে একটা বাংলা গান চলছে … …

“… …ছায়া বাজে পুতুল রুপে বানাইয়া মানুষ
যেমনি নাচাও তেমনি নাচি, পুতুলের কি দোষ … …”

সত্যিই তাই … … গানটার মাঝে কি নির্মম একটা সত্য লুকিয়ে আছে … … আমরা যারা পূর্ণাঙ্গ মানুষ, তারা কতই না ভাগ্যমান … …

১,৬৩১ বার দেখা হয়েছে

২৬ টি মন্তব্য : “জীবনের পথে পথে … …”

  1. দিহান আহসান

    আমাদের মেয়েদের মধ্যে এই জিনিসটা আছে, ঈশ!!! আল্লাহ আমাকে আরেকটু সুন্দর করে বানালে কি হত? কিন্তু আমরা বুঝতেই পারিনা, আমরা অনেক অনেক ভাগ্যবান বা ভাগ্যবতী। একজন পূর্ণাঙ্গ এবং একজন ভাল মানুষ হিসেবে আছি। 🙂

    ভাইয়া, ভাগ্যমান কি ভাগ্যবান হবে না?

    জবাব দিন
  2. সুস্থ স্বাভাবিক থাকতে পারাটা যে কত বড় ভাগ্যের ব্যাপার, তা অসুস্থ না হলে বোঝা যায় না। একটা নাক বন্ধ হলেই নিঃশ্বাসে যে কষ্ট হয়, অথচ সুস্থ অবস্থায় নিঃশ্বাস নেবার সময় একবার ও সেটা মনে হয় না যে, its a blessing.

    তবে না পাবার বেদনা, কিংবা উচ্চাকাঙ্ক্ষা থাকবেই সবসময়, না থাকলে মানুষ কি করে স্বপ্ন দেখবে?

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।