মিঠু-মন্টির ছড়ার বাকী অন্তরা

ক–এ কলা খ–এ খাই
এতো বেশী খেতে নাই।
গ–এ গরু ঘ–এ ঘাস
কত ঘাস খেতে চাস।
‘ঙ’ বলে, “কোলা ব্যাঙ,
সারাদিন ঘ্যাঙ ঘ্যাঙ!”
ক – খ – গ – ঘ – ঙ॥

চ–এ চাচা ছ–এ ছাই
দাঁত মাজো। ছাই চাই?
জ–এ জাম ঝ–এ ঝড়
ঝড় এলো জাম পড়।
‘ঞ’–বলে, “মিঞা ভাই,
বিয়ে খাব। চল যাই।”
চ – ছ – জ – ঝ – ঞ॥

ট–এ টাকা ঠ–এ ঠাট
ঠাট মেপে গড় হাট।
ড–এ ডাব ঢ–এ ঢল
ঢল এলো বাড়ি চল।
‘ণ’–বলে “আনো শণ।
ঘর তুলি কেটে বন।”
ট – ঠ – ড – ঢ – ণ ॥

ত–এ তাল থ–এ থাল
থালে রেখে খা‌বো তাল।
দ–এ দাতা ধ–এ ধার
ধার দিয়ে টাকা হার।
‘ন’ বলে, “নানা ভাই,
না’বো। চল বাড়ি যাই।”
ত – থ – দ – ধ – ন॥

প–এ পাতা ফ–এ ফল
ফল ভরা গাছে বল।
ব–এ বালা ভ–এ ভার
ভারী বালা হাতে কার?
‘ম’ বলে, “গা রে, মা;
‘আয় আয় চাঁদ মামা’।”
প – ফ – ব – ভ – ম ॥

এই কটি অক্ষরে
শেষ হলো ছড়া বলা।
ছড়ায় ছড়ায় হলো
মা’মণির ক-খ শেখা।

বাবা বসে গুণে দিন
আদরিনী কবে তার
গা’বে গান কোলে চড়ে।
“চাদের কপালে চাদ
টিপ দিয়ে যা॥”

পাদটিকা:
আমার দশ বছরের মেয়েটি বায়না ধরলো তাকে বাংলা অ্যালফাবেটের গান শোনাতে হবে। এই প্রথম তার বাবা-মা আর তেরো বছরের আপুর সাথে বাংলাদেশ দেখতে আসা। মনে পড়লো আমার ছোট্টবেলায় শোনা মিঠু-মন্টির অসমাপ্ত ছড়াটি। ওটিতে শেষ অন্তরাটুকু এভাবে জুড়ে দিলে ওকে শোনাবার জন্য কেমন হবে?

২,৩৮৩ বার দেখা হয়েছে

১৩ টি মন্তব্য : “মিঠু-মন্টির ছড়ার বাকী অন্তরা”

      • আহমদ (৮৮-৯৪)

        লিরিকটা নিচে দিলাম। ছোট-খাটো কিছু ত্রুটি থাকতে পারে

        ক- এ কলা
        খ- এ খাই
        এত বেশি খেতে নাই
        গ- এ গরু
        ঘ- এ ঘাস
        কত ঘাস খেতে চাস ?
        ঙ বলে কোলাব্যঙ সারাদিন ঘ্যাঙ ঘ্যাঙ
        ক খ গ ঘ ঙ ।।

        চ- এ চোখ
        ছ- এ ছল
        চোখ দুটো ছলছল
        জ- এ জল
        ঝ- এ ঝিল
        কত জল ঝিলমিল
        ঞ বলে মিঞা ভাই ভয় নাই ভয় নাই
        চ ছ জ ঝ ঞ ।।

        ট- এ টুপি
        ঠ- এ ঠিক
        হেরে গেলি ঠিকঠিক
        ড- এ ডাল
        ঢ- এ ঢোল
        ডাকে ঢোলে সোরগোল
        তালু আর জিভে মিলে হল মূধণ্য ণ ।
        ট ঠ ড ঢ ণ ।।

        ত- এ তুমি
        থ- এ থামি
        থামব নাকি আমি
        দ- এ দাঁত
        ধ- এ ধার
        কার দাঁতে কত ধার ?
        দাঁতে আর জিভে মিলে হল দন্তন্য ন ।
        ত থ দ ধ ন ।।

        প- এ পাপ
        ফ- এ ফল
        রাজা গেল রসাতল
        ব- এ বোন
        ভ- এ ভাই
        কত বোন কত ভাই
        ম- এ মাটি
        ম- এ মা
        মাটি আমার মা
        প ফ ব ভ ম ।।

        য- এ যাবে
        র- এ রথ
        রথ যাবে ছাড়ো পথ
        ল- লাল
        ব- বাতি
        জ্বলছেরে লালবাতি
        তালব্য শ- এ বলে বেশি বেশি কেন নেবে ।
        য র ল ব শ ।।

        তালু আর
        জিভে মিলে
        মুর্ধ্যণ-ষ
        দাঁতে আর
        জিভে মিলে
        হ্য় দন্ত-স
        ষ-এ ষাড়
        স-এ সাত
        পালা সাপ
        ওরে বাপ
        ঝোপ বুঝে কোপটা মারব।।

        হ-এ হাতি
        ড়-এ বড়
        হাতি দেখ কত বড়
        ঢ-এ ফোটা দিলে ঢ়
        মধু বড় গাঢ়
        ৎ-এ কুপোকাৎ
        মাৎ করে বাজিমাৎ
        অ আ চন্দ্রবিন্দু।।


        চ্যারিটি বিগিনস এট হোম

        জবাব দিন
  1. নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

    প্রথম ব্লগ লেখার শুভেচ্ছা আজহার ভাই।
    ছড়াটা ভালো লেগেছে।
    আপনি কি ছোটদের জন্য লেখেন?
    ছোটদের জন্য কম লোকেই লেখে।

    আশা করি আরো আরো লিখবেন এখানে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।