এম.জি.সি.সি………………২

সে শুধু আশায় বুক বেধে ক্ষান্ত দেয়নি। অন্য কিছু পথও অবলম্বন করা শুরু করলো…যেমন আগে আগে হাউসে এসে হাউসঅফিসে চিঠি স্যারদের আগে চেক করা। হাউসবেয়ারাকে ম্যানেজ করে হাউসমাষ্টারের টেবিলের ড্রয়ার চেক করা….ইত্যাদি। মোট কথা তার পক্ষে যতটুকু করা সম্ভব সে তার শেষ বিন্দু দিয়ে চেষ্টা করেছে। কিন্তু ফলাফল শূণ্য…………………

মাঝে মাঝে তাকে আমরা তার সেই বিখ্যাত I.C.C.L.M এর কাপুনি দেয়া গানটি গায়তে বলতাম, সে গাইতে চাইতনা হয়ত লজ্জা পেত, অনেক পিড়াপিড়ির পর সে শুরু করতো” তাকে বলে দিও, সে যেন আসেনা………….” আসলে ওর এই গান শুনে আমিও মুগ্ধ হয়ে যেতাম আর ভাবতাম “ইস্ আমি যদি গান গাইতে পারতাম?”… আর বুঝতে বাকী থাকতোনা কেন মেয়েটি ওর জন্য পাগল। কিছু উড়ুউড়ু খবর আসতে লাগলো…..যে আমাদের ব্যাচের এম.জি.সি.সির একটা “…..চাকমা” নামের মেয়েটা এই কান্ড ঘটিয়েছে…..সত্যতা কিছুতেই আর মিলছিলনা। এই ভাবে দিন চলে যেতে থাকে………………………..

 সময়ের গতি একদিন ঠিকই আমাদের বুঝিয়ে দিল ” আসলে পৃথিবীর কোন সুখের সময় তোমার জন্য চিরস্থায়ী নয়” আর এই উপলব্ধি নিয়ে আমরা কলেজ থেকে একদিন …..বাহিরের জগতে মিশে গেলাম……….. আমাদের C.C.P কে আমি রংপুর থেকে সাথে নিয়ে খুলনায় এলাম, সেখান থেকে ঢাকায় একসাথে ছিলাম……..সবাই জীবনযুদ্ধে ব্যস্ত হয়ে পড়লাম। এইচ.এস.সির রেজাল্টের কদিন আগে আমি খুলনা আর ও রংপুরে চলে গেলাম……………………………… রেজাল্ট দিলো, ও আর্মিতে টিকলো,জয়েন করলো.অফিসার হলো……………এই ভাবে চার বছর ওর সাথে আমার আর দেখা হলোনা। মাঝে মাঝে চিঠিতে যোগাযোগ হতো….একদিন ও কাপ্তাই থেকে কয়েক কিলো হেটে আমার বাসায় ফোন করেছিল। আমি খুলনায় থেকে গেলাম, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলাম। একদিন শুনলাম ওর ঢাকায় পোস্টিং হয়েছে।………………….. যাহোক ঢাকায় আসলে ওর সাথে দেখা হতে লাগলো…….আমরা প্রায় চিঠির প্রসংগ ভুলে গিয়েছিলাম….ওর জীবনে মোবাইলের মাধ্যমে নতুন একজনের আগমন ঘটল…মেয়েটার বাসা নাকি খুলনা,সেও তার নাম বলেনা…ও তখন আমার দিকে সন্দেহের তীর ছুড়লো যে এটা আমার কাজ…….(পাঠকরা, ওকে কে বোঝাবে আমার নিজের পেটে হাটু পানি,,আবার আর একজনের জন্য আমি কি রেডি করবো?………) ……ও তখন বললো দেখ, কলেজে একবার এই রকম মরীচিকার পিছনে ছুটেছি..আর না……

আমার তখন থেকে এম.জি.সি.সির ক্যাডেটদের প্রতি একটা বিরুপ ধারনা মনে জন্ম নিল…আসলে এরা এই রকম না করলেও পারতো,কেন মেয়েটা কলেজ থেকে বের হয়ে ওর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলোনা? কেন খুলনার মেয়েটা চিঠির লেখকের নাম বললোনা?……………………………………………………………….

যাহোক সময় কেটে যায় সময়ের নিয়মে………….আমাদেরও কেটে যাচ্ছিল ঠিকমতই……………..

.কিন্তু ……. তারিখ ১৫ই অক্টোবর,২০০৭….রোজার ঈদের পরদিন বিকাল৫টা…আমি ভীষণ ব্যস্ত ও টেনশনের মধ্যে সময় পার করছি কারন একটু পরই আমাদের গড়া ACCK (All Cadet College,Khulna) এর ২য় গেটটুগেদার,মাত্র ২মাস আগে ১ম টা শেষ হয়েছে…আয়োজকদের মধ্যে সবচেয়ে জুনিয়র আমি……আকাশে তখনই মেঘে কালো হয়ে গিয়েছে, একটু পর পর আমাদের সভাপতি ডা:মাহমুদ হাসান লেলিন (১৩ তম ব্যাচ,সভাপতি,JEXCA,Khulna) ভাই, আমাকে বলছে: আরিফ কি হবে? লোকজন আসবে কিভাবে? খাবার দাবার তো সব নষ্ট হয়ে যাবে? আমরা কজন ছাড়াতো আর কেউ নাই?…………….কোথায় আমাকে সাহস দিবে না ভাইকে আমার সাহস দিতে হচ্ছে………..এমন সময় একজনের আগমন,,আরিফ কেমন আছো? আমি তার মুখের দিকে তাকিয়ে: এইতো…..বলে কাজে মন দিলাম…………….কিছুক্ষণ পর সে আবার(হাসিহাসি মুখে)……………..আমাদের ব্যাচের “X” এর তো কদিন আগে বিয়ে হয়েগেল…..আমি ভ্রুকুচকে: “X” টা আবারকে তাকেতো আমি চিনিনা….সে:কেন তুমিনা ওর খোজে আমার বাসায় গিয়েছিলা?……….এবার আমার আর বুঝতে বাকী থাকলো “X” টা কে? …নিশ্চ্য় যারা পড়ছেন তাদেরও বুঝতে আর বাকী নাই……………………………………………………………………………………..

 শেষের কথা: আসলে আমার এম.জি.সি.সির ক্যাডেটদের প্রতি একটা বিরুপ ধারনা থাকলেও,এই কাহিনী লেখার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা কিন্তু তাদেরই….আমি আগে কোনদিনও কোথায় কিছুই লিখিনি…আমি জানি আমার লেখা অন্যদের মত সুন্দরও না..আমার বাংলায় টাইপ করে এত বড় লেখার অভিজ্ঞতাও আগে ছিলনা……..ব্লগে আমার লিখতে খুব কষ্টও হচ্ছে….তারপরও লিখলাম……কারন ওই এম.জি.সি.সির একটা কলেজ ম্যাগাজিন এ একটা প্রবন্ধ পড়েছিলাম “নষ্টালজিয়া”……..ওটা পড়ে আমার এতো ভালো লেগেছিল যে, একবার ভাবলাম ওটা চুরি করে…কলেজ ম্যাগাজিন এ নিজের নামে চালিয়ে দেই…….কিন্তু কি মনে করে তা আর করিনি………………….কদিন আগে কি মনে করে জানি ২য় বারের মত এই ব্লগে ঢুকি….ঢুকে “অর্চির-লাস্ট স্পোর্টস ডে” পড়ে শাকেরের প্রতি ওর ভালোবাসা দেখে…………আমার মনে হল..না এম.জি.সি.সিতেও ভালো মেয়েরা আছে, এবং আমাকে কিছু লিখতে হবে। লিখার পর সবার মন্তব্য আমাকে আরো লিখতে সাহস যুগিয়েছে……Thanx all of u…….

আমি দু:খিত আগে থেকেই, ব্লগে আমার লেখায় যারা কষ্ট পেয়েছেন বা পাবেন বা পাচেছন……………………..

গত কাল গল্পের নায়ক বলেছে আমাকে ফোন করে বলে, তুই শেষে আমাদের সবার নাম বোলে দে, আমার কোন আপত্তি নাই, এতে আমি বরং খুশি হবো এই ভেবে যে, কেউ তো আমার কাহিনীটা মনে রেখেছে,…..মেয়েটার নাম বলার দরকার নাই…কারন তোর মুখে শুনলাম ওর বিয়ে হয়ে গেছে…..(কি মায়া!এরই নাম বোধ হয় ১ম ভালোবাসা)

যাহোক, আমি আর কারো নাম বল্লামনা………….ব্লগ এ্যাডজুটেন্ট আবার মাইন্ড খাইয়া, যদি মোরে ই.ডি দেই? তার পারমিশনের অপেক্ষায় রইলাম…………নাম বলবো কি বলবোনা?

মাসরুফ..দেখলেতো এটা আমার কাহিনী না…আর অন্যদের বলছি আমি কোন রেটিং বাড়ানোর উদ্দেশ্য ছিলনা…আসল কথা হলো আমি পুরাটা লিখে সেদিন শেষ করতে পারিনাই। কামরুল ভাই আপনি Back না করলে আমিও আর Back করবো না, এটাই হবে আমার শেষ লেখা………….কারন দুইজনে তো একই দোষে অপরাধী এই ব্লগে….তাইনা???????????????

৫,০১০ বার দেখা হয়েছে

৫৫ টি মন্তব্য : “এম.জি.সি.সি………………২”

  1. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    দোষ হইল কোথায়???????ওই মিয়া এইগুলা কি কন?????এইবার কিন্তু আমি ডাক ছাইড়া কান্নাকাটি শুরু করুম কেউ ঠেকাইতে পারবোনা......আপনে আর কামরুল ভাই পাইছেন কি? x-(

    জবাব দিন
  2. ১.

    কামরুল ভাই আপনি Back না করলে আমিও আর Back করবো না, এটাই হবে আমার শেষ লেখা………….কারন দুইজনে তো একই দোষে দুষিতে এই ব্লগে….তাইনা???????????????

    বুঝলাম না! আমি গেছিলাম কোথায়? কিসের দোষ? বুঝাইয়া কও রে ভাই।

    ২.

    “অর্চির-লাস্ট স্পোর্টস ডে” পড়ে শাকেরের প্রতি ওর ভালোবাসা দেখে…………আমার মনে হল..না এম.জি.সি.সিতেও ভালো মেয়েরা আছে,

    তাইলে যারা ভালোবাসে নাই তারা সবাই খারাপ?

    ৩.

    লেখায় এতো '…………………………………………………………………' কেন?

    ৪.
    ভালো হইছে।

    জবাব দিন
    • আহ্সান (৮৮-৯৪)

      আমার মনে হয় আমি বুঝছি নায়কটা কেডা...
      বর্তমানে ঢাকাতে পোস্টিং তো? কিন্তু এইখানে কোর্স করতে আসছে...
      আমার ধারণা যদি সঠিক হয়ে থাকে, তাহলে আমি বলবো, মেয়েটা জানলোও না যে সে কি হারালো...।

      জবাব দিন
        • আহ্সান (৮৮-৯৪)

          মেয়েটির জন্য আক্ষরিক অর্থেই আমার এখন কষ্ট লাগছে। বোকা মেয়ে...।
          ছেলেটিকে আমি চিনি যখন সে খুব ছোট তখন থেকে। ও আমার অন্যতম ফেভারেট একটা জুনিয়র। যেমন ভদ্র, তেমনি সচ্চরিত্র, নম্র, প্রতিভাবান...মঞ্চে ঝড় তোলা ওর জন্য তো হাতের ময়লা। এত সুদর্শন এবং হ্যান্ডসাম ছেলে আর্মিতে খুব কমই আছে। আরিফ আমি কি ভূল কিছু বলেছি?
          জানিনা মেয়েটি হীরা ফেলে কাচ তুলেছে নাকি হীরাই...। হীরা তুলে থাকলেও, এই হীরা টা নিঃসন্দেহে অনেক মূল্যবান ও আকর্ষণীয় ছিল...।

          জবাব দিন
  3. অর্চি (৯৯-০৫)

    “অর্চির-লাস্ট স্পোর্টস ডে” পড়ে শাকেরের প্রতি ওর ভালোবাসা দেখে…………আমার মনে হল..না এম.জি.সি.সিতেও ভালো মেয়েরা আছে"

    ভাইয়া, ওর নাম শারেক, শাকের না!!
    আর এম.জি.সি.সিতে কি আগে ভালো মেয়েরা ছিলনা!!! x-( এম.জি.সি.সি = ভালো+ট্যালেন্টেড মেয়েদের কলেজ...

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।