উন্মাদনায় মাতি ফুটবলে বাঁচি

আপডেট: প্রতিযোগিতার সময় সীমা বাড়িয়ে লেখা জমা দেবার শেষ সময় ১০ জুন ২০১৪ করা হলো। এখনো লেখা না দিয়ে থাকলে এই সুযোগে মেতে উঠুন ফুটবল উন্মাদনায়!

ম্যারাডোনার ঈশ্বরের হাতের বা ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা গোল কিংবা তার কান্না ভেজা চোখ, রজার মিলারের কর্ণার ফ্লাগের সামনে নাচ কিংবা ভালদামারো হিগুইতার চুলের বাহার, বেবেতোর সদ্য জন্ম নেয়া শিশুকে উৎসর্গ করা রোমারিও-বেবেতো-মাজিনহোর গোল উদযাপন কিংবা টাইব্রেকার মিস করে ব্যাজিওর নিথর হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা, চিলাভার্টের বীরের মত লড়াই, বার্গক্যাম্পের যাদুকরী গোল, পুরো বিশ্বকাপ মাতিয়ে রাখা রোনালদো বা ফাইনালে হারিয়ে যাওয়া রোনালদো কিংবা ইতিহাস তৈরী করা জিদান, দিওফদের সেনেগাল, বেকহ্যামের পেনাল্টি, রোনালদিনহোর ফ্রি কিক, হাসান সাস-রুস্তু রেকোবার তুরস্ক অথবা আগের বিশ্বকাপের ঘাটতি সুদে আসলে পুরণ করে দেয়া রোনালদো, আর্জেন্টিনার ২৪ পাসের গোল, জিদানের হেডবাট কিংবা দূর্ভেদ্দো ক্যানেভেরা, ভুভুজেলা, অক্টোপাস পল, সুয়ারেজের হ্যান্ডবল, ডি জং এর কুংফু কিক কিংবা ইনিয়েস্তার গোল, এই মুহুর্তগুলো শুধু অতীতের টুকরো কিছু ঘটনা নয়, এর কিছু কিছু ঘটনা আমাদের জীবনের, আমাদের শৈশব, কৈশর, যৌবনের স্মৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গিয়েছে। আর এর মাঝে কতগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে আমাদের কলেজের প্রিয় টিভি রুমে।

এই স্মৃতিগুলোর সাথে আরো গভীর ভাবে জড়িয়ে আছে হাজার মাইল দূরের কোন দেশ, যাকে আপন করে নিয়ে পতাকা বানিয়েছি, উড়িয়েছি, প্রিয় বন্ধুর সাথে তর্কে মেতেছি, তাদের সাফল্য ব্যর্থতায় হেসেছি, কেদেছি।

এসব কিছুর পিছনে রয়েছে বিশ্বকাপ ফুটবল, The greatest show on the earth. চার বছরের অপেক্ষার পরে আমাদের সামনে এসেছে আরেকটি বিশ্বকাপ। ইতিমধ্যে আমাদের অনলাইন অফলাইন আড্ডায় বিশ্বকাপ জ্বর, বিশ্বকাপ ঝড় শুরু হয়ে গিয়েছে। আর এই জ্বরকে আরেকটু বাড়িয়ে তুলতে ক্যাডেট কলেজ ব্লগ আপনাকে আমন্ত্রন জানাচ্ছে পুরোনো স্মৃতিগুলো আবার একটু জাগিয়ে তুলতে, প্রিয় দলের প্রতি আপনার ভালবাসার প্রকাশ করতে। প্রিয় ফুটবল, প্রিয় দল নিয়ে বলতে পারার আনন্দের সাথে বাড়তি একটু আনন্দ যোগ করার জন্য আমরা রাখছি ছোট কিছু পুরষ্কার। সেরা লেখকের জন্য থাকছে প্রিয় ফুটবল দলের জার্সি এবং আর সেরা পাঁচ লেখার জন্য থাকছে বই।

পুরষ্কার ব্যাপারটা যেহেতু যোগ হয়েছে তাই কিছু নিয়ম কানুন রাখতে হচ্ছে।

১। লেখার বিষয় বস্তু মূলত দুটি। একটি হলো বিশ্বকাপ স্মৃতি, সেটি একটি পুরো টুর্নামেন্ট হতে পারে, একটি নির্দিষ্ট খেলা হতে পারে অথবা যেকোন খেলার নির্দিষ্ট একটি বা কিছু মুহুর্ত হতে পারে। আর দ্বিতীয়টি হলো আপনার প্রিয় দলের প্রতি আপনার সমর্থন শুরুর কারন বা সমর্থন করে পাওয়া বিশেষ কোন অনুভূতি।
২। লেখা ক্যাডেট কলেজ ব্লগের অন্য যেকোন সাধারণ লেখার মানদন্ড পার করতে হবে অর্থাৎ লেখককে ব্লগে নিবন্ধন করে বাংলায় লেখা দিতে হবে।
৩। লেখা জমা দেবার পূর্বে এডিট প্যানেলের ডান পাশের কলামের ট্যাগ এ ‘উন্মাদনায় মাতি ফুটবলে বাঁচি’ লিখে যুক্ত করুন।
৪। একাধিক লেখা গ্রহনযোগ্য, যত খুশী লিখুন। কোন নির্দিষ্ট শব্দ সংখ্যা নেই।
৫। সেরা লেখা বিচারের দায়িত্ব সম্পূর্ণভাবে বিচারকমন্ডলীর।
৬। লেখা জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১০ জুন ২০১৪
৭। প্রতিযোগিতার যে কোন ক্ষেত্রে ক্যাডেট কলেজ ব্লগ কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।

যে কোন জিজ্ঞাসার জন্য এখানে মন্তব্য করুন অথবা যোগাযোগ করুন আমাদের ফেসবুক পেজে অথমা মেইল করুন contact@cadetcollegeblog.com এই ঠিকানায়। ব্লগের পক্ষ থেকে এই আয়োজনের ব্যবস্থাপনায় থাকবে আহসান আকাশ (৯৬-০২)

এ বিশ্বকাপ হয়ে উঠুক আমাদের ঘরে বাইরের বিশ্বকাপ। স্মৃতির আঙ্গিনায় আরেকবার পা রেখে নিজকে খুঁজে ফেরার বিশ্বকাপ। অথবা চার বছর পর রক্তের যে বুনো ডাক এসে আমাদের প্রবল উন্মাদনায় ভাসিয়ে নিয়ে যায় সে কাঙ্খিত ডাকের বিশ্বকাপ। আমরা এ সব কিছু নিয়ে আছি আপনার সাথে পুরো দুটি মাস। বিশ্বকাপের পুরোটা সময় ক্যাডেট কলেজ ব্লগের সাথেই থাকুন।

কলেজের টিভিরুমের সেই পুরনো বিশ্বকাপ হয়তো ফিরে পাওয়া সম্ভব নয় , কিন্তু তাই বলে তো আর উন্মাদনা থেমে থাকতে পারে না। ক্যাডেট কলেজ ব্লগে আপনকে স্বাগতম।

৩,৯৮৬ বার দেখা হয়েছে

৪৪ টি মন্তব্য : “উন্মাদনায় মাতি ফুটবলে বাঁচি”

  1. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    উদ্যোগ ভালো লাগলো। যদিও অনলাইন একটিভিটি রেসট্রিকট করে ফেলসি, তারপরেও এইখানে আসা লেখাগুলো পড়বার জন্য আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করব।

    এডু স্যাররে ধন্যবাদ। সাথে আকাশরেও।

    জবাব দিন
  2. মোকাব্বির (৯৮-০৪)

    জুনায়েদ ভাই কিছু লিখতেসেন না! এইগুলা ঠিক না! আন্দালিব ভাই কই? আমিন ভাই? 😕 😕


    \\\তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা
    অবুঝ শিশু হামাগুড়ি দিল পিতামাতার লাশের ওপর।\\\

    জবাব দিন
  3. পারভেজ (৭৮-৮৪)

    সময় বাড়িয়ে তো কোন লাভ হয়েছে বলে মনে হচ্ছে না। ২৪ ঘন্টা হতে চললো এখনো নতুন কোন পোস্ট দেখতে পাচ্ছি না।
    আমাকে কি আবার লিখতে বসতে হবে নাকি?
    তাই বা কি করে হয়?
    একজনের একঘেয়ে লিখা পড়ে পড়ে তো সবাই বিরক্ত হয়ে যাবে......


    Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।