শ্রদ্ধাঞ্জলি

শহীদ মেজর তানভীর হায়দার নূর (ডানে) ও শহীদ মেজর আবু সৈয়দ গাযালী দস্তগীর (বামে) কে আজ বনানী সামরিক কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শায়িত করা হয়েছে। মেজর তানভীর ১৯৭৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি দুই পু্ত্রসন্তান ও স্ত্রী রেখে গেছেন। উল্লেখ্য যে,কবরস্থ করার সময় ক্যাপ্টেন তানভীরকে মেজর পদবীটা দেয়া হয়েছে। সবাই তাঁদের আত্মার শান্তির জন্যে দোয়া করবেন।

graveyard

আজ থেকে আর কয়েকটা মুহুর্ত পরে ২০০৯ সাল শেষ হয়ে যাচ্ছে। আমার জীবন থেকে একটা সাল,খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বছর চলে যাবে। কি নাম দিব আমার জন্য এই বছরের? সুখের ইতির ইতিহাস, নাকি জীবনযুদ্ধের সুত্রপাত। কখনো ভাবছি ভুলে যাবো এ বছরকে, কখনো ভাবছি তাহলে তো তানভীরকে ভু্লে যাওয়া হবে। ওকে তো কোন অবস্হাতে ভু্লবো না।

গত ১/১/০৯এ ইলেকশন ডিঊটী শেষ করে রাতে ফিরে আসার কথা ছিল ওর। আমি ঢাকা থেকে রংপুর পৌছানোর এক ঘন্টা আগে ও সেল ফোনে ফোন করে জানালো যে আজকে আসতে পারছিনা কয়েকটা দিন দেরি হবে। কেন যেন বুকের ভিতরে একটা মোচড় দিয়েছিল, বাসস্ট্যান্ডে নেমে খুব খারাপ লাগছিল। কারণ এই প্রথম বার আমাকে নিতে ও আসতে পারলোনা। ও ফোন করে বলল যে, রণা আমি এজন্যই তো আর চাকরী করতে চাইনা। যে কোন একটা দায়িত্ব নিব, এক জায়গায় থাকবো তোমাকেও একা চলাফেরা করতে হবেনা। মেজর হয়ে, মিশন করে এসে একটা এম বি এ করে যবটা ছেড়ে দিব। আমার বউ শীতের রাতে ১১টায় বাচ্চা ২জনকে নিয়ে ব্যাটেলিয়ন থেকে গাড়ি আসার অপেক্ষা করছে আর আমি ডোমার,ডিমলা সামলাচ্ছি, কেউ একটা টাইমলি গাড়ী পাঠাতে পারলো না। এরপরে ৪৫মি; অপেক্ষা করার পরে গাড়ীটা আসল, বাসায় গিয়ে কেন যে ভিতরটা এত খালি লাগছিল, এখন তা বুঝি। হয়ত এটা ছিল একা হবার পূ্র্বাভাস।

৩,০৯৮ বার দেখা হয়েছে

৪২ টি মন্তব্য : “শ্রদ্ধাঞ্জলি”

  1. রহমান (৯২-৯৮)

    হায়দার ভাই (তানভীর স্যার) মেজর র‌্যাংক পাওয়ার জন্য ভাবীকে অভিনন্দন :hatsoff: :hatsoff:

    সকল শহীদদের জন্য সশস্ত্র :salute: :salute: :salute: , শহীদ ভাবী ও বাচ্চাদের জন্য রইল দোয়া :boss: :boss:

    জবাব দিন
  2. প্রেরণা (অতিথি)

    কেউ কি জানেন কত স্বপ্ন নিয়ে শুরু হয়েছিল আমাদের জীবন। আর এত বড় একটা ম্যাস হয়ে গেল আমাদের জীবনে, আসলে কোন অবস্হাতেই মেনে নিতে পারছি না আমি। কোন সান্তনা কোন কিছুই ভাল লাগে না। শুধু মনে হয়, কেন বেচে আছি, কোথাও এডজাস্ট হতে পারিনা। জীবনকে সুন্দর করে তোলার সব কিছু আমি হারিয়েছি। কোথাও কোন আনন্দ আর নাই। মাঝে মাঝে ভাবি সবই তো ঠিক আছে তাহলে আমার এত কস্ট হয় কেন? আমার জীবনের তৃপ্তিসহকারে নিঃস্বাস নেবার বা ফেলার কোন অধিকার আর থাকলনা। মহান আল্লাহতালা আমাকে এত সুখ কেনই দিল কেনই বা স্বল্প সময়ে নিয়েও নিল?

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।