সিরিয়াল ২১ ও ২২, ২২ ডিসেম্বর, ২০০২, বাসর নাকি বেদনার আসর!

সিরিয়াল ২১
২২ ডিসেম্বর, ২০০২, বাসর নাকি বেদনার আসর!
পুলিশঃ আপনি আমার সাথে আসেন(আমার দিকে তাকিয়ে)।কি নাম?
আমিঃ শর্মিলী
পুলিশঃ আনোয়ার হোসেন
পুলিশঃ বয়স কত?
আমিঃ ১৮
পুলিশঃ দেখেতো মনে হচ্ছে না। কাগজ দেখান
আমিঃ আমার কাছে কাগজ নেই স্যার
পুলিশঃ তাহলে বুঝব কিভাবে এটা বাল্যবিয়ে না?
আমিঃ স্যার মে মাসেই আমার ১৮ হয়ে গেছে।
পুলিশঃ কাগজ না থাকলে কিছু করার নাই। আপনার বাবা কোথায়?
আমিঃ বাসায়। এই বিয়ের কথা জানলে আমার আব্বু আম্মু কষ্ট পাবে স্যার। প্লিজ, আমি সত্যি বলেছি আমার ১৮ হয়েছে। আমি বিদেশ যাবো বলে বিয়েটা শুধু করে যেতে চেয়েছি। বাসায় পরে জানাতে চেয়েছি। প্লিজ স্যার আব্বু আম্মুকে জানাবেন না।
পুলিশঃ আপনার বাসার ঠিকানা আর বাবার ফোন নম্বর বলেন
আমিঃ প্লিজ স্যার আপনি চাইলে আমি কাল আপনাকে নিজে এসে কাগজ দিয়ে যাব। আজ আমাকে যেতে দিন। বাসায় জানে আমি হোস্টেলে পড়তে গেছি বান্ধবীর সাথে। প্লিজ স্যার।
পুলিশঃ কিছু করার নেই, আপনাদের নামে কেস হয়েছে
আরিফঃ কেস? সেটা কিভাবে সম্ভব?আমাদের বিয়ে এখানে সবাই জানে।বাড়িওয়ালা আঙ্কেল আন্টি তো জানে। কে কেস দিল?
পুলিশঃ বিয়ের কাজী
আরিফঃ এইজন্যই তো লোকটা বিয়ে পড়ালো মুখ ঢেকে। ছবিও তুলেনি
আমরা সবাই তখন কাজী সাহেবকে পেলে হত্যা করতাম।
পুলিশঃ আপনারা যে যে আছেন সবাই আসেন।মেয়ের বাবা এসে সব ঠিক না বলা পর্যন্ত সবাই আমাদের জিম্মায় থাকবে
আমিঃ প্লিজ স্যার,এমন জানলে আমার মা বাবা সহ্য করতে পারবে না।
পুলিশঃ উপায় নেই। রিপোর্ট হয়েছে, বুঝতেছেন না কেন?
আমিঃ স্যার ড্রেসটা বদলে যাই প্লিজ।
পুলিশঃ সম্ভব না। এখন রাত, কেউ দেখবে না।ভয় নেই।
বাসায় তালা দিয়ে আমি, আরিফ, আর তার ৪ বন্ধু চললাম পল্টন থানায়।কি ব্যাপার হল কিছুই বুঝতে পারছি না। খাওয়া হয়নি। টেনশন লাগছে।
আরিফঃ হানিমুন তো হারডিঞ্জ ব্রীজে করার কথা ছিল, হল না
আমিঃ আপনার খুব মজা লাগছে?
আরিফঃ লাগবে না! বাসর রাত শশুরবাড়ীতে হবে!এরকম বাসর কার কবে হয়েছে
আমিঃ আমার এতক্ষণে বাসায় থাকার কথা। আব্বু আম্মু এসব দেখলে একদম মরে যাবে।

সিরিয়াল ২২
২২ ডিসেম্বর, ২০০২, শশুরবাড়ী মধুর হাড়ি
ভরা পুর্ণিমা আকাশে। থানার বারান্দায় সেই আলো এসে পড়ছে।বিয়ের কত সপ্ন থাকে মানুষের মনে। বাসর রাত জীবনের সবচেয়ে সুন্দর রাত হবে, এই আশা সবারই থাকে। আমাদের বাসর রাত হবে না, কারণ আমি বিয়ে করেই বাসায় চলে যাব- এটা আমরা জানতাম। কিন্তু জানার বাইরেই জগতটা মনে হয় আরো বেশি চমকপ্রদ।বাসর হল তো হল একদম থানায়।
আমরা দুই বর কনে আর তাদের চার বন্ধু বসে আছি ওসির রুমে।থানায় সবাই হা করে দেখছে বর-বউ নিয়ে কি কান্ড হয়!কেউ মায়া করে ইস উস করছে।
হাওলদারঃ কি হয়েছে মা? এতো সুন্দর বর তোমার? কি করেছে?
আমিঃ কিছু করেনি আঙ্কেল, সবাই ভাবছে আমার বয়স কম। তাই বিয়ে অবৈধ
হাওলদারঃ আহারে, কি চাদের মত দেখতে দুইটা ছেলে মেয়ে, এভাবে কেউ আটকে রাখে!
কেউ লুকিয়ে খাবার নিয়ে আসছে।কিন্তু আমাদের খাবার ইচ্ছা নেই। ভাবছি আব্বু আম্মু এলে কি জবাব দেব।
আয়াঃ একটু খেয়ে নাও তোমরা। কি হতে কি হয়। কত রাত হয়!ওসি স্যার দেখলে আবার রাগবে
আমিঃ অনেক খুশি হয়েছি আন্টি।কিন্তু খেতে ইচ্ছা করছে না।
আয়াঃ মন খারাপ কর না, আল্লাহ ভাল করবে তোমাদের
ওসি আসলেন হনহনিয়ে।
আরিফঃ স্যার আমাকে একটা ফোন করতে দেন। আমার কাকা আপনাদের প্রফেশনে আছেন। আপনি চিনবেন
ওসিঃ কোন কথা নাই
আরিফঃ প্লিজ স্যার
ওসিঃ ছেলে আর তার বন্ধুদের আটকাও। মেয়ে থাকুক এখানে। বাপ এসে নিয়ে যাবে।
আমিঃ স্যার, আমার সামীকে আটকালে আমাকেও সাথে আটকাতে হবে।
ওসিঃ কেন?
আমিঃ কারণ আমরা সবাই সমান দোষী।
ওসিঃ আপনি নাবালিকা, এটা দোষ না
আমিঃ আমি নাবালিকা নই। ৫ মে, ২০০২ আমার ১৮ হয়েছে। আমি একা বাইরে থাকব না। দুইজন একসাথে থাকব।
ওসিঃ ঠিক আছে। ছেলে মেয়ে থাক। বাকীদের আটকাও।
আমিঃ স্যার প্লিজ আমার বাবা-মা আসার সময়টুকু অপেক্ষা করুন
আরিফ আর তার বন্ধুরা অবাক হয়ে দেখছে, আমি কিভাবে ওসির সামনে পটপট করে কথা বলছি। আব্বু আম্মু আর ভাই এল। সবাই ভাষা হারিয়ে ফেলেছে।আমি এখানে কিভাবে! তাও বিয়ের শাড়িতে! আম্মু কাদছে অনবরত।দেখে আমিও কেদে ফেললাম।
ওসিঃ আপনি তাহলে মেয়ের বাবা। মেয়ের খোজ খবর রাখেন না মনে হচ্ছে
আব্বু আম্মু লজ্জায় শেষ। সাথে আমরা সবাই।
ওসিঃ মেয়েতো একাই বিয়ে করে ফেলছে। বয়স কম দেখে কাজীসাহেব কম্পলেইন করেছে। মেয়ের বয়স কি ১৮ হয়েছে?
আব্বুঃ বাচ্চা মেয়ে আমার। ১৮ কিভাবে হবে?
ওসিঃ ওকে, ছেলেকে লকাপে ভর।

৮০৫ বার দেখা হয়েছে

৫ টি মন্তব্য : “সিরিয়াল ২১ ও ২২, ২২ ডিসেম্বর, ২০০২, বাসর নাকি বেদনার আসর!”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।