আমার প্রেমিকারা-৩

বয়স সে এক বিশাল ধাঁধাঁ।এই ধাঁধাঁর ঘোর এখন ও আমার কাটলো না।ছোটবেলায় বয়স যখন খুব কম, স্কুলে পড়ি তখন, ক্লাসের এক বান্ধবীকে প্রেম নিবেদন করেছি মাত্র। সাহস ও ছিলনা তখন খুব একটা।স্কুল ছুটির সময় মনে অনেক সাহস সঞ্চয় করে খালি একখানা চিরকূট দিয়ে লিখেছি- ‘তোমায় দেখলে নড়ে হৃদয়ের পেশি’।তারপর সারাদিনের সেকি উত্তেজনা।সে গল্পে আজকে আর না যাই।অবশেষে পরের দিন তিনি যখন ক্লাসে এলেন,আমার তখন হৃদস্পন্দন চলছে মাইক্রো সেকেন্ডে।সারাদিন অপেক্ষায় রেখে ঠিক ছুটির সময় আমাকে পাল্টা আরেক খানা চিরকূট পাঠালেন।তাতে লেখা-‘তোমার বয়স কম,চয়েজ বেশি’।

এরপর ঠিক করেছি,বয়স বাড়ুক তারপর অল্পবয়সী মেয়েকে প্রেম নিবেদন করবো। ততদিনে ভার্সিটিতে উঠে গেছি,দেখেশুনে স্কুল পড়ুয়া এক মেয়ের সাথে ভাব-বিনিময় শুরু করলাম।বলতে গেলে প্রেমের স্কুলের শিক্ষাগুরুর মত তাকে দেখেশুনে বড় করলাম।আমার প্রেমিকা ও ততদিনে ভার্সিটিতে উঠে গেছে।আর সেই হয়েছে কাল।তার চোখ-মুখ ততদিনে ফুটে গেছে।সে গাড়িওয়ালা,বাড়ীওয়ালা ছেলে চিনে গেছে।আর আমার স্থান হয়েছে সাবেকের তালিকায়।মনের দুঃখে তখন তাকে শেষবারের মত একটা চিরকূট পাঠিয়েছি।তাতে লিখেছি- ‘শুকরের যখন দাঁত গজায়,তখন প্রথম কামড়টা ও বাপের পশ্চাতেই দেয়’।

আসলে প্রেমিকাদের সাথে বোধহয় সবচেয়ে মিল স্বৈরাচারীদের সাথে। প্রয়োজনে সে কখন ও আঁতাত করে আবার কখন ও আঘাত করে। এই ঘাত-প্রতিঘাতে সম্পর্কের মান-অভিমানে কি যে নিদারুন হয়ে উঠে এই জীবন।তা গনতন্ত্র-কামী প্রেমিক মাত্রেরই জানা হয়ে গেছে।
আর এই স্বেচ্ছাচারী মনোভাবের শখ মেটাতে গিয়ে কত অপচয়,তাতে আমার মনে পড়ে এই দেশেরই এক রাষ্ট্রপ্রধানের কথা।যিনি এক শুক্রবারে চট্রগ্রামে ছিলেন।সমস্যা আসলে সেটা নয়, আসল কথা জুমার নামাজ পড়া নিয়ে।কিন্তু বিধির কি পরিহাস,নামাজ পড়তে তো পাঞ্জাবি লাগবে,কিন্তু তাতো ঢাকায়।কি আর করা,যেই কথা সেই কাজ। ঢাকা থেকে তার শখের একখানা পাঞ্জাবি জনগনের টাকায় কেনা লাখ টাকার তেল পুড়িয়ে একাকী হেলিকপ্টারে চড়ে গন্তব্য পৌছুলেন। কপাল ভাল,এর বেশি ঘটনা আর এগোয়নি।নইলে সেবার স্কুল পরীক্ষার প্রশ্নে একখানা রচনা আসতো-‘একটি পাঞ্জাবির আত্তকাহিনী’।

৫,৩৯১ বার দেখা হয়েছে

৫৪ টি মন্তব্য : “আমার প্রেমিকারা-৩”

  1. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    জটিল ......

    আসলে প্রেমিকাদের সাথে বোধহয় সবচেয়ে মিল স্বৈরাচারীদের সাথে। প্রয়োজনে সে কখন ও আঁতাত করে আবার কখন ও আঘাত করে। এই ঘাত-প্রতিঘাতে সম্পর্কের মান-অভিমানে কি যে নিদারুন হয়ে উঠে এই জীবন।তা গনতন্ত্র-কামী প্রেমিক মাত্রেরই জানা হয়ে গেছে।

    এক্কেবারে খাঁটি কথা .........

    জবাব দিন
  2. অমায়িক একটা লেখা হয়েছে।

    ‘শুকরের যখন দাঁত গজায়,তখন প্রথম কামড়টা ও বাপের পশ্চাতেই দেয়’

    এত সুন্দর কথা অনেক দিন পরে শুনলাম।
    বড়ই সৌন্দর্য্য।
    :boss: :boss: :boss: :boss: :boss:

    জবাব দিন
  3. ওয়াহিদা নূর আফজা (৮৫-৯১)

    তোমার (কাল্পনিক??) প্রেমিকা ভাগ্য যতোটা না খারাপ লেখার হাত ঠিক ততোটাই ভালো। তোমাকে কি বলা যায় - এ যুগের রাসপুটিন।


    “Happiness is when what you think, what you say, and what you do are in harmony.”
    ― Mahatma Gandhi

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।