রোম্যান্টিক মুভি বিড়ম্বনা

ভারতবর্ষের অধিকাংশ মুভিগুলোই রোম্যান্টিক ভালোবাসাকে সম্বল করে এর পটভূমি তৈরি করে। এখানকার গানের কথাগুলোর ক্ষেত্রে একই বিষয় প্রযোজ্য। হলিউড বা পাশ্চাত্য কিন্তু এই ব্যাপারে বাতিক্রম। তারা আমাদের পরিচালক অথবা গীতিকারদের মত ভালোবাসা নিয়ে এতটা আচ্ছন্ন নয়। জানিনা আমাদের এরকম প্রবণতা কেন।
মুভিকে যদি একটি দৃষ্টিকোণ থেকে কল্পনা বিলাস বলা যায়,যেখানে অপূর্ণ ইচ্ছাগুলোর বহিঃপ্রকাশ ঘটে তাহলে বলা যেতে পারে এখানকার মানুষগুলো বড়ই ভালোবাসা বঞ্চিত।
মুভি নামক কল্পনার জগতে নিজের অপ্রাপ্তিগুলোকে পূরণ হতে দেখে চাপা পড়া ব্যাথাগুলো কিছুটা উপশম হয় আরকি। গান বা কবিতার মাঝে দুঃখগুলোকে উড়িয়ে দেয়া যায় সহজেই , হালকা হয় মন।
শৈশব অথবা বিবাহিত জীবনের মাঝে ভালোবাসাকে যেন অদেখার স্বর্গের মত মনে হয়; যা সত্য, কিন্তু কেউ কোনোদিন এর ব্যাপারে চাক্ষুষ কোন জ্ঞান লাভ করে নি ।
বস্তুবাদী সমাজে, অ্যারেঞ্জড ম্যারেজের মাধ্যমে বাবা মায়ের পছন্দ করা ছেলে অথবা মেয়েটিকে বিয়ে করা, তারপরে বনিবনা না হওয়ার পর্যায়ে চূড়ান্ত ভাবে অভিযোজনের প্রচেষ্টা। ব্যর্থ হলে শেষমেশ চক্ষু লজ্জার কারণে বহু কষ্টে ঘৃণা নিয়ে বাকীটা জীবন বসবাস করার প্রয়াস।
অথবা প্রেমের টানে আকৃষ্ট হয়ে যার সাথে নিজের জীবনকে বেঁধে নিয়েছে,করেছে জীবন সঙ্গী, সেই মানুষটিকে আজ কেন যেন বড় অচেনা লাগে এবং বহু দুরের মানুষ মনে হয়। ভালোবাসা শুধু ক্ষণিকের অনুভূতি অথবা মরীচিকা!!!
তখন ভালোবাসাকে খোজা হয় ফিল্মের পর্দায়, গানের কথায় কিংবা লাইলী মজনুর রুপকথায়।
আসলে কি আমরা ভালোবাসার সংজ্ঞার ব্যাপারে খুবই দ্বিধান্বিত?, নাকি নিজেরাই আসলে অবগত নই আমারা আসলে কি চাই ?
সে যেটাই হোক না কেন, ভারতবর্ষের মানুষগুলোর মাঝখানে ভালোবাসার অভাব তা এখানকার মুভিগুলোর একঘেয়েমি রোম্যানটিক ধারার জন্য দায়ী।
এবং দুঃখের বিষয় হল মুভিগুলোর প্রেম নিছক অভিনয় ছাড়া কিছু নয়।

২,০৬৫ বার দেখা হয়েছে

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।