সবাই যায় পশ্চিমে,আমি গেলাম পুবে ও পশ্চিমে (১)

আজ আমার প্রবাস জীবনের ৩ বছর পার হয়ে যাচ্ছে। ২০০৯ সালের এই দিনে বাক্স পেটরা নিয়ে হাজির হয়েছিলাম তৎকালীন জিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। আমার মা হাপুস নয়নে কান্না কাটি করছিলেন,সাথে যোগ্য সঙ্গ দিচ্ছেন আমার বড় ফুপি। আমি দুজনের কাছ থেকে একটু আড়ালে থাকছি,কারন কান্না বিষয়টা বমির মতো,দেখলেই পেয়ে যায়।

পকেটে কিছু বাংলাদেশী টাকা ছিল, ভাগ করে দিয়ে দিলাম আমার ছোট ভাইকে আর ফুপাতো ভাইকে। আমার বাবা আমাকে বিভিন্ন উপদেশ দিতে লাগলেন। কিভাবে সাথে থাকা ডলার এবং সুটকেস নিরাপদে রাখতে হবে,বিপদে পড়লে কি করতে হবে,সুটকেস মিসিং হয়ে গেলে কি করতে হবে এইসব।

আমার সাথে আরো যাচ্ছে ৬ জন সরকারী স্কলারশীপ প্রাপ্ত ছাত্র এবং দুইজন ছাত্রী। সবাই বেশ কান্নাকাটি করছে,একজনের দেখলাম প্রেমিকাও এসেছে। সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চেক ইনে দাঁড়ালাম। একজন ছাত্রী আমার সাথে পরিচত হবার চেষ্টা করল,নাম ধাম, বাড়ি কোথায় ইত্যাদি। আমি সযত্নে উত্তর করে এড়িয়ে গেলাম,কারন সামনে দীর্ঘ পথ,আবু ধাবী তারপর মস্কো। অতিরিক্ত খাতিরের ফলাফলে আমার ঘাড়ে তার বাক্স পেটরা উঠিয়ে দেবার সম্ভাবনাই ৯০ ভাগ। অতএব যাত্রাপথে আমি কুসুম কুসুম রোমান্সের আশা পরিত্যাগ করলাম।

সেই রমণী আর আমি এখন একই শহরে পড়াশুনা করি,আশা করি রমণীর চোখে এ লেখাও পড়বে,এবং রমনী এই অধম রমনকে মাফ করিয়া দেবে।

বাক্স পেটরা প্লেন কোম্পানীকে গছিয়ে দিয়ে ইমিগ্রেশনের লাইনে গিয়ে দাঁড়ালাম। আমার সামনে সুইডেন গামী একদল শ্রমিক ভাই,তাদের গায়ে একই রঙের গেঞ্জি,মাথায় একই রঙের ক্যাপ। জিজ্ঞাসা করে জানতে পারলাম,তারা একই কোম্পানীতে চাকরী করতে যাচ্ছে। ইমিগ্রেশনে যাতে ঝামেলা না হয় এই জন্য ট্র্যাভেল এজেন্সি থেকে এই কাপড় পরিয়ে দিয়েছে,আরো জানতে পারলাম ভিসা লাগাতে ৫ লাখ টাকা নিয়েছে মাথা পিছু। শ্রমিক ভাইদের বিদায়ের পর আমার পালা।

ডেস্কে বসা পুলিশ আমাকে অনেক কিছু জিজ্ঞাসা করল,মস্কো যাচ্ছি শুনে তার পরিচিত এক আত্মীয়ের নাম এবং ফোন নাম্বার আমাকে লিখে দিল। আমিও বিনয় প্রদর্শনে কার্পন্য করিনি একফোটা। বাত-চিত শেষে আমার পাসপোর্ট মিলিয়ে দেখার পালা,কম্পুটারে নাম্বার ঢুকাতেই বিদ্যুৎ চলে গেল,মেজাজ গরম করে অফিসার আমাকে সিল ছাপ্পড় মেরে দিল কারন ব্যাক আপ জেনারেটর চালু হতে হতে ৩ মিনিট লাগে,আর সিস্টেম রিস্টোর হতে আরও ৪-৫ মিনিট। এত দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করার মতো বাজে সময় অফিসারের হাতে নেই। আমি মনে মনে ভাবলাম বাহ! আমি যদি আজ সাজাপ্রাপ্ত ফেরারী আসামীও হতাম,পার হয়ে যেতাম নিশ্চিন্তে।

এয়ারপোর্টের ভিতরে কিছু খাবারের দোকান আছে,সেখানে ১০ টাকা দামের মাম পানির বোতলের দাম ৭০ টাকা, বনরুটি সাইয বার্গারের দাম ৩৬০ টাকা,রোল পরোটা ৩৫০ টাকা ইত্যাদি।
আমি জীবনে প্রথমবারের মতো ডিউটি ফ্রি মার্কেট দর্শন করে ভীষণ হতাশ হলাম। কুকুরের পেটে ঘি সয় না,আর গরীবের গায়ে এসি সয় না। ভিতরের শীতল বাতাসে আমার ভীষণ শীত শীত করতে লাগলো। বসার জন্য সুন্দর জায়গা আছে,সেখানে নানা কিসিমের মানুষের ভিড়,বেশির ভাগই শ্রমিক ভাইয়েরা। আর একটু উচু দরের যাত্রীরা নিজেদের আলাদা বলয় সৃষ্টি করেছে, সেখানে তারা নিজেদের মধ্যে গল্প গুজব করছে,বেশির ভাগ কথাই বলছে ইংরেজিতে, যেখানে আটকে যাচ্ছে সেখানে বাংলা।

উড়োজাহাজের পেটে চাপিয়া বসিলাম। একপাশে এক মস্কোগামী এক ছাত্র অন্যপাশে অপরিচিত এক ভদ্রলোক,বাইরে গুড়ি গুড়ি বৃস্টি,মনের মধ্যেও গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। মায়ের সাথে কথা বলছিলাম সেল ফোনে। অসম্ভব রূপবতী এক রমনী এসে বলল
– স্যার প্লিজ টার্ন অফ ইউর ইলেকট্রনিক ডিভাইসেস।
ভাগ্যিস স্কুল কলেজে ১২ বছর আংরেজি শিখেছিলাম নয়ত যাত্রাপথে বহু সমস্যা হয়। গোঁদের উপর বিষফোঁড়া,তখন চলছিল রোজা। প্লেনের অধিকাংশ যাত্রী ওমরা হজ করতে যাচ্ছে। আমার ধারনা ছিল শুধু মাননীয় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াই ওমরা হজ করেন,বিশাল হজ বহর দেখে ভুল ভাঙল।

উড়োজাহাজ আকাশে ডানা মেলার সাথে সাথে যাত্রীদের খচর মচর শুরু হয়ে গেল,বোম্বে চানাচুর,বন রুটি,কলা কিছুই বাদ থাকলো না। এবং খাবার পর অনায়াসে প্যাকেটগুলো ঝড়ে পড়তে লাগলো প্লেনের মেঝেতে।

আমি সোজা বোতাম টিপে ভদকা আর কোকের অর্ডার করলাম,ফ্রি প্রিমিয়াম এলকোহল যতদূর কনজিউম করা যায় ততখানিই লাভ,এই ছিল দর্শন। বাঙ্গালী ফ্রি পেলে শাদা লুঙ্গিতে আলকাতরা তুলে নেয় আর সেখানে এলকোহোল। কোথায় আগরতলা কোথায় খাটের তলা।

পাশের যাত্রীরা আমার দিকে চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে রইল। এসব চক্ষু উপেক্ষা করা প্রথমে প্রথমে একটু কষ্টকর।
ঘণ্টা খানেক পর এক ওমরা যাত্রী এয়ার হোস্টেসকে ডেকে নিয়ে হজ এর শানে-নুজুল,সওয়াব ইত্যাদি বুঝিয়ে বলছিলেন। রমনীর গরু চোখ দেখে আমার পেটের মধ্যে হাসি গড়িয়ে গেল,এক অক্ষর বুঝতে পারছিল না রমণী। নিজের ইংরেজি দক্ষতার প্রদর্শনী দেখিয়ে আমি অনুবাদ করে দিলাম মূল অংশ।

এরপর খাবার পালা,সাটিয়ে বসলাম তাছাড়া আমার মৃদু এলকোহলের পর খাবার রুচি বাড়ে। যা খাবার দিল,সেই রকম খাবার তিন বার চালালেও আমার পেটের আধা ভরবে না।
খাবার পর চা/ কফির আয়োজন। আমি এসব ছেড়ে রেড ওয়াইন চেয়ে বসলাম। আমার কাণ্ড কারখানায় সাথে ছাত্র ছাত্রীরা খুবই বিরক্ত,পারলে প্লেন থেকে নেমে পরের প্লেনে আসে এমন অবস্থা। অথবা ফোন করে আমার বাপের কাছে নালিশ দেয়।

দামী বিমান বলে কথা, সেখানে মিউজিক শোনা এবং মুভি দেখার বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে। ছাত্রদের মধ্যে দুইএকজন কানে হেডফোন লাগিয়ে রক মিউজিক শুনতে লাগলো এবং মাথা সামনে পেছনে দোলাতে লাগলো। এই গান শোনা পার্টি আমার খুবই বিরক্ত লাগে,আমি বিশ্বাস করি কণ্ঠ আছে অতএব গান শুনলে নিজের গলায়। এদের কাজ কারবার দেখলে মনে হয় মায়ের পেট থেকে পড়েই রক মিউজিক শোনা শুরু করেছে,ওয়াইন শেষ করে আমি কম্বল মুড়ি দিয়ে ঘুমাতে নিলাম তখন দেখি মুসুল্লী পার্টী প্লেনের খাবার প্যাকেটে ভরছে,কারন তারা রোজা। এই নাহয় বাঙ্গালী,নামে যেমন কাজেও তেমন।

৬ ঘণ্টা ওড়ার পর নামার সময় হয়ে এল,নামার সময় তলপেটে অদ্ভুত এক চাপ অনুভুত হয়,যেই সেই না একদম বেশ ভালো একটা চাপ। সহিহ সালামতে নেমে আসলাম আবুধাবী বিমান বন্দরে। চারদিকে যতদূর চোখ যায় শুধু বালি আর বালি।

আবু ধাবীতে আমাদের ২৩ ঘন্টার যাত্রাবিরতি। চেকিং এর আনুষ্ঠানিকতা সেরে পৌঁছে গেলাম বিমান অফিসের ডেস্কে। উল্লেখ্য এই যে, সব জায়গায় কথা বার্তা আমিই চালিয়েছি,হাজার হোক গত ৫ বছরের আংরেজি মিডিয়ামে পড়বার অভিজ্ঞতা বলে কথা। তবে ইদানীং ফেশবুকে যেভাবে ইংরেজি চর্চা হচ্ছে তাতে মাঝে মাঝে বড় দোটানায় পড়ে যাই। আসলে কোনটা সহি আংরেজি? যেটা স্কুল কলেজে শিখেছি নাকি যেটা কুল ডুডসরা লেখে সেটা?

এয়ারপোর্ট হোটেলের কার্ড নিয়ে হোটেল রুমে চলে এলাম,সেখানে এক রাত থাকার আয়োজন এবং ৪ বেলা খাবার আয়োজন করা হয়েছে। চাবি ছাড়া তালা দেখলাম সেই প্রথম,খোপের মধ্যে কার্ড ভরে দিলে দরজা খুলে যাচ্ছে,আহা সে যেন জাদুর বাক্স। ভিতরে আর একটা স্লট,সেখানে কার্ড সেট করলে বিদ্যুৎ সংযোগ। চমৎকার সাধু। অর্থাৎ কেউ রুম থেকে বেড়িয়ে গেলে বিদ্যুৎ অপচয় হবার কোন সম্ভাবনা নেই। সরকারী অফিস আদালতে এই সিস্টেম করলেও পারে।
এছাড়াও রুমে ঢুকেই এসির রিমোট হাতে নিয়ে একটা নাতিশীতোষ্ণ টেমপেরেচার সেট করে বাকি সবাইকে দেখিয়ে দিলাম যে আমি নিতান্ত ফেলনা নই। প্রতি রুমে দুইজন করে মোট ৪ রুম দেয়া হোল আমাদের।

আমার সাথের ছেলেটা একটু আড়ষ্ট বোধ করতে লাগলো,সে বিছানায় চুপচাপ বসে রইল। আমি তার সামনেই কাপড় চোপড় খুলে গোসল করতে ঢুকে গেলাম,তার চক্ষু কপালে,অবশ্য আমার দোষ না,আমার হ্যান্ড লাগেজে কোন কাপড় ছিল না। আমি নিরুপায়। বাথটবে ঘণ্টা খানেক দাপাদাপি করে ফিরে এসে দেখি ছেলেটা সেই একই জায়গায় চুপচাপ বসে আছে। বললাম গোসল করতে যেতে,না বোধক মাথা নাড়ল সে। আমি চুপচাপ টিভি ছাড়লাম,বোরিং আরাবিক চ্যানেল দেখতে দেখতে ঘুমিয়ে গেলাম।
( চলবে)

৩,৫৩৯ বার দেখা হয়েছে

২৮ টি মন্তব্য : “সবাই যায় পশ্চিমে,আমি গেলাম পুবে ও পশ্চিমে (১)”

  1. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)

    হামীম,
    তোমার লেখার স্টাইলটা সবসময় খুব ভালো লাগে...ঝরঝরে আর নির্মেদ; একটানে পড়ে ফেললাম। :boss:
    পরের পর্ব তাড়াতাড়ি নামায়ো।


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  2. মাজহার (০৬-১২)
    তবে ইদানীং ফেশবুকে যেভাবে ইংরেজি চর্চা হচ্ছে তাতে মাঝে মাঝে বড় দোটানায় পড়ে যাই। আসলে কোনটা সহি আংরেজি? যেটা স্কুল কলেজে শিখেছি নাকি যেটা কুল ডুডসরা লেখে সেটা?

    =)) =)) COOL DUDES 😀


    MJ

    জবাব দিন
  3. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    তোমার খবর আছে। :duel:
    তুমি দ্বৈত কবিতা লিখো, এই লিখো , সেই লিখো, কিন্তু সিসিবির জন্য তোমার লেখা নাই। :gulli:
    এই লেখার ও দেখছিলাম অন্য লিঙ্ক।
    মাপ কইরা দিলাম :guitar:
    এখন যাই পইড়া আসি।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  4. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    লেখা ভালো হইছে। যা আবারো মাপ করলাম।
    তোর মাথায় তো বেজায় বুদ্ধি। এক মাইয়া খাতির করতে আস্লো আর তুই বুইঝা গেলি লাগেজ গছানো পার্টি। সাধু সাধু
    আর খালেদা রে নিয়া উলটা পালটা কথা বলো; না!
    আর হাজীদের ব্যাঙ্গ করো! জানো না এইটা ইসলামের একটা রুকণ।
    আমি লাইফে একবারই পেলেনে উঠছি; বিডি এয়ারলাইন্স।
    কোন টিভি নাই, ম্যাগাজিন নাই, গান নাই।
    পেলেন ছাড়ার সময় আবার আরবি আর বাঙলায় দোয়া পইড়া ভড়কাইয়া দিছে; যদি ভাইঙ্গা পড়ে!
    আমারে খাওন ডাবল দিছে আমার সাইজ দেইখা। আর চামে আমার ভাবী ও যে একজন এয়ার হোস্টেস (নায়ক মান্নার স্ত্রী) এইটা বলতে ভুলি নাই। চামে এইটাও সবাইরে বইলা দিলাম আমি নায়ক মান্নার ফুফাতো ভাই। আমার সামনে বাঙলা সিনেমার কোন দুর্নাম করা চলবে না।
    আর বাঙলা বিমান তাই মদ খাইতে পারি নাই। যদিও দুবাই থিকা সহযাত্রী বিয়ার নিয়া উঠছিলো। আমি শুধু গন্ধ নিছি। খাই নাই :goragori:
    আর রক বা মেটাল নিয়া কি কইলি? তোরে খাইছি।
    আমার পছন্দ, ">লেড জেপলিন,
    ">মেটালিকা,
    ">পিঙ্ক ফ্লয়েড


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  5. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    আর আরবি দেখলে ">এইরকম গান দেখবা
    আর নয়তো হারাম শরীফ, আর মদীনা মুনাওয়ারা দেখবা।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  6. তানভীর (২০০১-২০০৭)

    হামীম, খুব সুন্দর ও সাবলীল লেখা।
    ওহ আর একটা কথা " ম্যাড্যাম " কে নিয়ে বাজে কথা বলতে নেই ভাই.........পাছে একটা বিশাল অংশ কষ্ট পাবে।
    পরের পর্বের অপেক্ষায়।


    তানভীর আহমেদ

    জবাব দিন
  7. ড. রমিত আজাদ (৮২-৮৮)

    তোমার স্মৃতিচারণ পড়ে নিজের কথা মনে পড়ল। পার্থক্য একটাই, তুমি ২০০৯-এ গেলে আর আমি ২০০৬-এ ফেরৎ এসেছি। ঐ যে, তোমার হলো শুরু আমার হলো সারা।
    সুন্দর লিখেছ!

    জবাব দিন

মওন্তব্য করুন : নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

জবাব দিতে না চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।