অকৃতজ্ঞতা বা কৃতঘ্নতা কি আমাদের জাতিগত সমস্যা?

ক্যাডেট কলেজগুলো মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখার পরও মুক্তিযুদ্ধের পরপরই তা বন্ধের যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল তা থেকেই একটা প্রশ্নই মাথায় ঘুরপাঁক খায়….// অকৃতজ্ঞতা বা কৃতঘ্নতা আমাদের জাতিগত সমস্যা কিনা?//

ক্যাডেট কলেজগুলো বন্ধ করে দেয়ার চিন্তা ভাবনা বা উদ্যোগ নতুন কিছু নয়। স্বাধীনতার পর পর তো বটেই এখনও অনেকে আছেন যারা এ ব্যাপারে একেবারেই আপোসহীন। যদিও ক্যাডেট কলেজের বিকল্প (ক্যাডেট কলেজ বন্ধ করে দেয়ার পর) কি হতে পারে বা তার চেয়েও ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা শিক্ষা ব্যবস্হা কি হতে পারে সে ব্যাপারে তারা আম-জনতাকে অন্ধকারে রাখতেই পছন্দ করেন।

সম্প্রতি সামহোয়্যার ইন ব্লগে একজন ব্লগার ক্যাডেট কলেজ নিয়ে খুব আজগুবি (অবশ্যই ব্যাঙ্গাত্বক এবং চরম নেতিবাচক-গঠনমূলক তো দূরের কথা) লেখা লিখলো। আর ঐ আজগুবি লেখায় ৯০০র বেশি হিট পড়লো। কি আর করা দিলাম প্রত্তুত্তর (অবশেষে বিলটার বড় অশ্বথ গাছ থেকে নেবে আসলেন আমাদের চাঁদগাজী ভাই—এবং ওনার ক্যাডেট কলেজ বিষয়ক নাটক)। আমি জানি আমার জায়গায় সিসিবির অন্য কেউ যদি সেই উত্তরটা দিতেন তা আরও ভালো এবং তথ্য সমৃদ্ধ হতো।

ধন্যবাদ জানাই সেইসব লেখকদের যাদের সিসিবিতে ইতোমধ্যে প্রকাশিত লেখাগুলো আমি তথ্যসূত্র হিসেবে ব্যাবহার করেছি।

১০ টি মন্তব্য : “অকৃতজ্ঞতা বা কৃতঘ্নতা কি আমাদের জাতিগত সমস্যা?”

  1. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    প্রথম প্যারার সাথে ভিন্নমত।
    কারণ মুক্তিযুদ্ধে অবদান এর সাথে ক্যাডেট কলেজ সিস্টেম থাকা আর না থাকা একই খাতে যায় না।

    আমাদের প্রথম প্রায়োরিটি কিন্তু দেশ।
    দেশের জন্য ক্যাডেট কলেজ প্রয়োজনীয় হলে থাকবে নতুবা নয়।

    এমন না যে দেশ গড়ার পিছনে ক্যাডেট কলেজের অবদান নেই।
    তারপরো ভেবে দেখার বিষয় এই যে দেশটা গরীব।

    আর ক্যাডেট কলেজের মূল উদ্দেশ্য কি?
    সামরিক বাহিনীর জন্য যোগ্য করে গড়ে তোলা। আমি অন্তত এভাবেই বুঝি।

    প্রতি বছর গড়ে ৪৫০ জন ছেলে আর ১৫০ জন মেয়ে ক্যাডেট বের হচ্ছে।
    সামরিক বাহিনীতে দুই স্টেপে যাচ্ছে কতোজন?
    ১০০/১৫০ জন।
    বাকিরা কি করছে???

    শুধুমাত্র এই কারণে আমার মনে হয় সারা দেশের জন্য ৪টা ক্যাডেট কলেজই যথেষ্ট ছিলো।

    ক্যাডেট কলেজে পড়ার কারণে আমাদের মধ্যে ক্যাডেট কলেজ কে নিয়ে মাত্রাতিরিক্ত আবেগ কাজ করে। যেটা কিনা অস্বাভাবিক রকমের বাড়বাড়ন্ত।

    এছাড়া ক্যাডেট কলেজে পড়ার কারণে প্রচুর ক্যাডেটদের মধ্যে এক ধরণের আমি কি হনু রে টাইপ মেন্টালিটি দেখা যায়, যদিও এইটা অনেকেই স্বীকার করবে না।

    শুধু ক্যাডেট কলেজ ই নয় আমাদের পুরো শিক্ষা ব্যবস্থা এবং শিক্ষা পরবর্তী চাকুরি বা পেশা গত জীবনে অনেক পরিবর্তন খুব জরুরি।

    ক্যাডেট কলেজে দেশ প্রচুর ভর্তুকি দেয় সত্য। কিন্তু ক্যাডেটদের বেতন ইত্যাদির অবস্থা এখন এমন যে আরেকজন আতিউর রহমান এর দেখা পাওয়া সম্ভব নয়।

    আমি ক্যাডেট কলেজের থাকা না থাকা বুঝি এইভাবে যে, এর চাইতে বেটার আউটপুট আসার পূর্ব পর্যন্ত ক্যাডেট কলেজ থাকুক।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  2. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    সামু নিয়া চুলকানি আছে তাই ওখানে কি হয় দেখি না।
    চাদগাজীর লেখার লিনক দিস।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  3. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    চাদগাজীর লেখাটা পড়লাম।
    এটা পড়ে এতো উত্তেজিত হবার কি আছে ভাবছি। (সম্পাদিত)


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন

মওন্তব্য করুন : মোস্তাফিজ (১৯৮৩-১৯৮৯)

জবাব দিতে না চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।