মেঘ, বৃষ্টি এবং অগণিত বর্ষা

আমি ওকে কখনোই বলতে পারতামনা।।আসলে পারিওনিতো।ও আমাকে সবসময় বলত-
-মেঘ একটা প্রেম করনা দোস্ত।একা একা আর কতদিন?
বৃষ্টির কথাগুলো সবসময় বিঁধত আমাকে।ওরা আসলে বোঝেনা।কিংবা বুঝেও না বোঝার ভান করতে পছন্দ করে।তাই এভাবে পাশ কাটিয়ে যেতে চাইতো সবসময়।আমিও তাড়াহুরো করিনি।সময় নিয়েছি।বুঝিয়েছি নিজেকে।আমার সুখদুঃখ হাসি কান্নার সাথী কি সত্যিই আমাকে আরো আপন করে চায় নাকি এটাই ওর শেষ।বৃষ্টি ছিল আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু।আমার সবচেয়ে আপনজন।তাই ওর অপেক্ষাই আমাকে একা রেখেছিল।কিছু তো করার নেই।ভয় পেতাম।ফের যদি হারিয়ে যায়।সেই কষ্টটা তো আমি নিতে পারবোনা।তাই অপেক্ষা।সবচেয়ে বড় প্রতীক্ষা।মেঘ তো বৃষ্টি র জন্যই অপেক্ষা করবে তাইনা?আমিও করেছি।কখনো ভাবিওনি যে মেঘ ছাড়া বৃষ্টি পড়তে পারে।পারেনা তো।আমিও চালাকি করে পাশ কাটিয়ে যেতাম।ও কিন্তু সুযোগ পেলেই বলত-
-প্লিজ মেঘ,করনা ১টা প্রেম!!
মজাই লাগতো।আমি মনে মনে বলতাম-
-আমি তো করতেই চাই রে পাগলি,১টা বার বলে দেখ আমায়।
তবে বলতে পারতামনা।।দিন যায়।।বৃষ্টি র প্রতি ধীরে ধীরে আরো দুর্বল হয়ে যেতে লাগলাম।কিন্তু হারানোর ভয়ে কখনো বলা হয়ে ওঠেনা।।পাগলটা আমাকে এত বুঝত শুধু এই ১টা ব্যাপারেই বুঝতনা।।আমিও চেষ্টা করতামনা।।সবচেয়ে আশ্চর্য লাগতো যখন আমার আগেই আমার মনের কথাগুলো ও বুঝে যেতো।।বিধাতা কি আমার জন্যই ওকে বানিয়েছিলেন তবে।না না,ওকে ছাড়া বেঁচে থাকা ইম্পসিবল।।নিজে নিজেই আরো বেশি বেশি ভালোবাসতে থাকি ওকে।।একদিন ফোন দিয়ে ও আমাকে চমকে দেয়।
-মেঘ,আমার না বিয়ে ঠিক হয়ে গেছেরে।।ছেলে আমেরিকায় থাকে,ইঞ্জিনিয়ার।।
-তাই??বলিসকি??আমাকে তো কিছুই জানালিনা।
-তুই বুঝি চেয়েছিলি জানতে??
-বৃষ্টি তাই বলে এভাবে………
বলতে বলতে গলা ধরে এল আমার।।আর কিছু বলতে পারলামনা।।ওপাশ থেকে ও বুঝতে পেল মনে হয়।।
-মেঘ তুই খুশি হসনি?
-ওহ,হ্যা খুশি তো!!অনেক খুশি রে……..
ফোন কেটে দিলাম বলেই।আমি আর নিতে পারছিলামনা।।শুধু মনে হচ্ছিল আমার স্বপ্ন দেখা কি তবে ভুল ছিল।।কিন্তু কিকরে।।বৃষ্টি কিকরে থাকতে পারবে।।আমার মনের কথাগুলো যে আগে আগে ও ছাড়া কেউই বলতে পারেনা।।কিকরে বুঝাই আমি তাকে।।আবার ফোন দেয় বৃষ্টি।
-কিরে,ফোন যে কেটে দিলি?
নিজেকে সামলে নিয়ে বললাম,
-নেট প্রব্লেম মে বি।।
-ওহ,শোন না,তোর কিছু বলার নেই মেঘ??
-আমার?নাহ,আমার আর কি বলার আছেরে পাগলি?তোর সুখই তো আমার সুখ তাইনা?
-ও তাই?তো কি বুঝিস,বন্ধু??আমি অনেক খুশি তাইনা??
-হু তাইতো।জানাস ও নি একবারো।।আচ্ছা রাখি রে।।পরে কথা হবে।।
ফোনটা আবার কেটে দিলাম।।আমার থেকে যেনো হারিয়ে গেলো আমার পৃথিবী।আমি প্রস্তুত ছিলামনা।আমি হারাতে চাইনা।আমি কি ওকে জানাতেও পারবোনা মনের কথাগুলো??কোনো কিছুই চিন্তা করতে পারছিলামনা।।নিজেকে খুব একা মনে হতে লাগল।।এরপর ২ টা দিন যে কিভাবে গেল।।আমি আর কারো সাথে কথাও বলিনি।ওর সাথেওনা।।কি বলব আমি?ও অনেকবার ফোন দেয়।কিন্তু আমি ধরিনি।।বিধাতার বিশাল জগতে নিজেকে খুব ক্ষুদ্র প্রাণী মনে হচ্ছিল।।কেন??কেন??চিন্তাভাবনা গুলো অবশ হয়ে যেতে লাগলো আমার।……………….
…………………………………
…………………………………
…………………………………
১ সপ্তাহ পর……………………
মেসেজটা পেয়ে বৃষ্টি র সাথে দেখা করতে ছুটে গেলাম।।
“মেঘ,আমার বেস্ট ফ্রেন্ড।।প্লিজ আমার সাথে ১টাবার দেখা কর।।প্লিজ।।আজকে ডি ও এইচ এস পার্কে আসবি বিকেল ৫ টায়।।আমি তোর জন্য অপেক্ষা করবো।।না আসলে বুঝবো আমার ধারণা ভুল।।”
১৪ ফেব্রুয়ারি,২০১৯,বিকেল ৫টা।।
ডি ও এইচ এস পার্কে হাজির হলাম।।আমার প্রিয় নীল শাড়ি পরে এসেছে বৃষ্টি।।পরীর মতন লাগছিলো ওকে।।কত বলেছিলাম নীল শাড়ি পরতে।।কিন্তু ভীষন লজ্জা পেত।।কখনোই পরেনি আগে।।আজ হঠাত কেন??তবে কি??????????
ধীর পায়ে এগিয়ে গেলাম সামনে।।চোখের দিকে তাকাতে পাচ্ছিলামনা।।
-কিরে বুদ্ধু,happy valentines day ও বলবিনা বুঝি!
-ওহ,happy valentines day দোস্ত।।
-ফোন ধরিসনাই কেনো??
-ওহ একটু অসুস্থ ছিলাম রে।।
-মেঘ আমি তোর চোখ দেখেই বুঝি যে তুই মিথ্যা বলছিস,তা তুই জানিস।।
-এতোই যখন জানিস তো আর জিজ্ঞেস কেন করছিস?
-মেঘ আমি আজকে তোর নীল শাড়ি পরে এসেছি।।
-হু,অনেক সুন্দর লাগছে তোকে।।কিন্তু…………।
-কিন্তু কি??
-আমার জন্য তো আর পরিসনি,তোর বিয়ে হয়ে গেছে তাই পরেছিস…
-বিয়ে???????????
-হ্যা,বিয়ে,…থাক আসি…।
বলে আমি চলে আসতে পা বাড়াই।।পেছন থেকে হাতটা টেনে ধরে ও।।বিদ্যুত খেলে যায় শরীরে।।
-মেঘ আমি বিয়ে করিনি।।
-মানে??
-মানে করিনি।।
-কিন্তু কেন??
-এমনি,ভালো লাগেনি তাই করিনি।।
-সত্যি বলছিস তুই বৃষ্টি??
-তো কি??এখনো কি চলে যাবি নাকি কিছু বলে যাবি??
২য় বার জীবন পেলে তাকে হারাতে দিতে নেই।।আমিও আর ভুল করলামনা।।যথেষ্ট হয়েছে।।
-বৃষ্টি তুই কি সত্যিই কিছু বুঝিসনা?জানিস না কতো ভালোবাসি তোকে??
-নাতো,জানতাম না তো।।তাই??আমার বন্ধুটা ভালোও বাসতে পারে?
-i love u brishti..please dont leave me alone…
-তাহলে এতদিন বলিসনি কেনো??i dont love you গাধা।।
-বিশ্বাস কর তোকে ছাড়া আমি কিছু ভাবতেও পারিনি বৃষ্টি।।ভয়ে বলিনি।।তুই যদি ছেড়ে চলে যাস সবকিছু শুনে।
-তাই!!আচ্ছা।।যুদি সত্যি সত্যিই বিয়ে করে ফেলতাম!!!
ওর ঠোঁটে তর্জনী ধরলাম।
-চুপ,অনেক হয়েছে,আর না প্লিজ।।এবার একটু শান্তি দে আমায়।।
-আর কখনো লেট করবি বলতে??
বলতে বলতে আমার অনেক কাছে চলে আসে ও।।আমিও ওকে আরো কাছে টেনে নিলাম।।
-আর কক্ষনো না রে।।love you brishti…
সেদিন থেকে আমি সবচেয়ে সুখী মানুষ।।অনন্তকাল বেঁচে থাকা যায় ওকে নিয়ে।।পাড়ি দেওয়া যায় সাত সমুদ্র।।আর কোনো কষ্ট নেই আমার।।এখনো বৃষ্টি পড়ে,মেঘ হতে বৃষ্টি,বৃষ্টি স্নাত মেঘ।।পড়বে,যতদিন থাকবে বর্ষা।। আর তুমি এবং আমি………………………………………………………………

৩,৩৭২ বার দেখা হয়েছে

২ টি মন্তব্য : “মেঘ, বৃষ্টি এবং অগণিত বর্ষা”

মওন্তব্য করুন : সেই হয়েছে বস

জবাব দিতে না চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।