ছবিব্লগ ২ – গত এক বছরের মার্কিনি ফিরিস্তিঃ নতুন জীবন

মিশিগান স্টেটটির আকার একটু অদ্ভুত। চারদিকে লেক দিয়ে ঘেরা এই স্টেট দুটো ভাগে বিভক্ত হয়ে আছে। উপরের ভাগ আপার পেনিনসুলা ও নিচের ভাগ লোয়ার পেনিনসুলা। আমি যাচ্ছি আপার পেনিনসুলারও উত্তরে হো’টন (Houghton) নামক ছোট একটি শহরে। এককালের তামা খনির জন্য বিখ্যাত এই এলাকায় প্রচুর ইউরোপীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকানদের বসবাস। রাত এগারোটায় বিমান থেকে নামার পর বুঝতে পারছিলাম না এটা এয়ারপোর্ট নাকি গ্যাস স্টেশান। জানতে পারলাম শুধুমাত্র এই এলাকার হাজার সাতেক অধিবাসীর জন্য (যার মাঝে হাজার পাঁচেক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র) দিনে দুটো করে মোট চারটি ফ্লাইট এখানে এসে নামে ও ছেড়ে যায়। আন্তর্জাতিক ছাত্রদের স্বাগত জানাতে বেশ বড়সড় একটি দল দাঁড়িয়ে আছে একটু দূরেই। বেশ দূরের এক গ্রামেই এসেছি দেখা যায়। উঠলাম গিয়ে আগে থেকে পরিচয় হওয়া এক দেশীর বাসায়। আমাদের এপার্টমেন্টটি তখনো মেরামত ও ঘষামাজা শেষ হয়নি তাই দিন চারেক অপেক্ষা করা লাগবে। এর মাঝে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওরিয়েন্টেশান, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ওরিয়েন্টেশান ও ক্যাম্পাস ট্যুরের পর অফিসে এলাম যার যার টেবিল বুঝে নিতে।

আমার অফিস টেবিল

আমার অফিস টেবিল


আট মেগাপিক্সেল ক্যামেরাসহ মোবাইল হাতে পাবার পর মাথা কিঞ্চিত বিগড়ে ছিলো মাস দুয়েকের মত। যা দেখি যেভাবে দেখি সেভাবেই ছবি তোলা শুরু করলাম। তারপরে ঘষামাজার কথা তো বাদ। তখনো বই পত্র খুব একটা হয় নাই তাই বেশ গাম্ভীর্য প্রকাশের জন্য সাদাকালো ছবি অথচ ল্যাপটপে ফেইসবুকের পেইজ। পরের বেশ কয়েকটা ছবি এরকম মাথা বিগড়ানোর ফসল।
মাথা বিগড়ানো ১

মাথা বিগড়ানো ১


আমি যে একজন জ্ঞানী স্নাতকোত্তর পর্যায়ের ছাত্র সেটা জাহির করার প্রথম চেষ্টা।
মাথা বিগড়ানো ২

মাথা বিগড়ানো ২


রাত তিনটার সময় অফিস ও এপার্টমেন্টের চাবির ছবি তুলে সেটাকে অনায়াসেই ঘষে হলুদ করে ফেলা যায়। আসলে ভালো লাগছিলো। চারিদিকে নতুনের ছোঁয়া। এক সূতো পুরোনো কিছু নেই।
সবাই এটাকে মাব বলে।

সবাই এটাকে মাব বলে।


সবাই এটাকে মাব (MUB) বলে। মেমরিয়াল ইউনিয়ন বিল্ডীং থেকে মাব। গত এক বছরে এখানে অনেক বার আসা হয়েছে সামনেও আসতে হবে। কারণটা স্পষ্ট। বইয়ের দোকান। তারচেয়ে বড় কথা ক্যাফেটেরিয়া। ওদের কফিটা জঘন্য তবে মাফিনের সাথে কিনলে মূল্য ছাড় পাওয়া যায় বেশ খানিকটা।
অনেকটা নোটিস বোর্ড বলা যেতে পারে।

অনেকটা নোটিস বোর্ড বলা যেতে পারে।


উপরের ছবিটা MUB এর ঠিক সামনে। ভার্সিটির বিভিন্ন ইভেন্টের খবর, সিনেমার খবর ইত্যাদি এখানে ঝুলতে থাকে। তাপমাত্রার পরিবর্তন তুলে ধরার জন্য এই নোটিশবোর্ডের ছবি বেশ কয়েকবার হয়তো আসবে পরের দিকে। সেপ্টেম্বরের ২০ তারিখে তোলা ছবিতে দেখা যাচ্ছে ৫৬ ফাঃ বা ১৩.৩৩ সেঃ যেটা দেশের জন্য বেশ ঠান্ডা। যদিও গত বছর দেশে সব কিছুকেই হার মানিয়েছে।
আমার বাসার সামনে

আমার বাসার সামনে


একদিন ভোরে উঠে ক্লাসে যাবার আগে তুলে ফেললাম উপরের ছবিটিও। আমি থাকি শহরের প্রাণকেন্দ্রে যেটাকে ডাউনটাউন বলা হয়। এলাকার বিখ্যাত থিয়েটার, নাম তার লোড থিয়েটার “Lode Theater,” ব্লু-রে, আই-ম্যাক্সের কাছে হার মেনেছে বেশীদিন হয়নি। এই পরিত্যক্ত সিনেমা হলটি এখন গাড়ি ইন্স্যুরেন্স কম্পানির হাতে। উপর তলার অফিস ঘরটিকে কম্পানির মালিক এপার্টমেন্টে রূপান্তরীত করে নিয়েছেন বাড়তি কিছু আয়ের আশায়। উনাকে নিয়ে কথা হবে আরেকদিন। তবে হ্যা সেই রূপান্তরীত এপার্টমেন্টেই আমার বসবাস। সাথে আছে ফৌজদারহাটের জোসেফ। ছিমছাম হাতের নাগালে সবকিছু তাই এখান থেকে নড়াচড়া করিনি এখনো। থিয়েটারের সামনের চেহারাসহ ছবি তুলে কোন এক পর্বে জুড়ে দিব। আপাদত ছবি নেই।
বাসার পিছনের লেক।

বাসার পিছনের লেক।


বাসা থেকে বের হয়ে রাস্তা ধরে হেঁটে নিচে নেমে গেলেই পোর্টেজ লেক। আমাদের দেশী জনগোষ্ঠি সাধারণত এখানে আসার প্রথম বছর ক্যাম্পাসের বাইরে থাকে। পরের বছর থেকে ক্যাম্পাস হাউজিং এ চলে যায়। আমি যাই নাই। এই দৃশ্যের লোভে আসলে অন্য কোথাও যেতেও ইচ্ছা করে না।
ভোর হচ্ছে।

ভোর হচ্ছে।


এদেশে এসে ডান বামের হিসাবে গোলমাল পাকিয়েছি পুরো এক সেমিস্টার। রাস্তা পার হবার সময় রীতিমত ভয় লাগতো। তবে এদের পথচারী অগ্রাধিকার আইনের কারণে কিছুটা রক্ষা। একদিন রাস্তা অর্ধেক পার হয়ে দেখি ১৮ চাকার এক কন্টেইনারবাহী ট্রেইলার আমার দিকে আসছে। দেশের অভ্যাসবশত রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে ইশারা দিলাম সামনে দিয়ে চলে যেতে, শক্তিশালী হাইড্রলিক ব্রেক আর চাকার স্কীড কাটার শব্দে হুঁশ হলো যে দেশে নাই। দৌড়ে রাস্তা পার হয়ে দুঃখিত বলে আবার হাঁটা দিলাম।
আমার ডিপার্টমেন্ট দ্বিতীয় তলায়।

আমার ডিপার্টমেন্ট দ্বিতীয় তলায়।


এদেশে আসার পর লিফটে উঠে খুব ঝামেলায় পড়তাম। কোন ভবনে গার্ডেন লেভেল আবার কোন ভবনে বেইজমেন্ট লেভেল, তার উপরে তো প্রথম তলা আছেই। সব মিলিয়ে G1, B1, 1 এই তিনের চক্করে অনেকবার ঘুরপাক খেয়েছি বিভিন্ন ভবনে। এই ছোট ভবনে যদিও বড় কোন লিফট নেই। তবে ১৯৩০ সনের সম্পূর্ণ কর্মক্ষম হাতে টানা একটি মেকানিক্যাল লিফট আছে। উপরের ছবির ভবনটি মিশিগানটেকের শুরুর দিকের পাঠাগার ছিলো। এখন এতে সমাজবিজ্ঞান ও ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ। মিশিগান টেক যন্ত্রকৌশল বিভাগের জন্য বিখ্যাত। এককালের মাইনিং কলেজের বর্তমান যন্ত্রকৌশল বিভাগের পাশ করা ছাত্রের চাকুরীর অভাব হয় না। বরং বড় বড় গাড়ি নির্মাতা কম্পানি থেকে লোক এসে ক্যারিয়ার ফেয়ারে স্পট ইন্টারভিউ নিয়ে ছেলেমেয়েদের বাছাই করে নিয়ে যায়। এরকম এক ক্যারিয়ার ফেয়ারের প্রথম দিন ক্লাস থেকে বের হয়ে যন্ত্রকৌশল ভবনের সামনে এসে থেমে গেলাম। Gone In 60 Seconds চলচিত্রটি দেখে এই মডেলের গাড়ির প্রেমে পড়েছিলাম। সেই গাড়ির মডেলের ২০১২ উত্তরসূরী সামনে রাখা। হা করে অনেক্ষণ তাকিয়ে থাকার পর আবার মাথা বিগড়ানো শুরু হলো। তবে হ্যা। মাথা শুধু আমার বিগড়ায়নি। আরো ডজনখানেক আমাদের দলে ছিলো যারা বিভিন্ন কোণ থেকে গাড়িটির ছবি নেয়ার চেষ্টা করছিল।
ছবি নিজেই কথা বলুক।

ছবি নিজেই কথা বলুক।


ছবি নিজেই কথা বলুক

ছবি নিজেই কথা বলুক


ছবি তুলে অফিসে ফেরত আসতে আসতে ভাবছিলাম একেই মনে হয় বলে স্বপ্নের মাঝে বাঁচা। [চলবে]

১০ টি মন্তব্য : “ছবিব্লগ ২ – গত এক বছরের মার্কিনি ফিরিস্তিঃ নতুন জীবন”

  1. দিবস (২০০২-২০০৮)

    এতদিনে আমি বুঝে গেছি যে আমি টিউব লাইট। অনেক সময় লাগে বুঝতে। খুব সহজ জিনিসও ধরতে সময় লাগে। একটা ঘটনা বলি, সিউলে আসছি ৩/৪ দিন হইছে। এক বড় রাস্তার কাছে গেছি। পাড় হওয়া দরকার। আমি রাস্তার পাশে দাঁড়ায় চিন্তা করতেছি এই রাস্তা আমি ক্যামনে পাড় হই? এত্ত গাড়ী এত স্পীডে যাইতেছে, কি করি? এইভাবে চিন্তার পর দেখলাম গাড়ী থাইমা গেল। সিগন্যাল নামক জিনিসটার কথা তখন আমার মনে আসল। এখনো মাঝে মাঝে আমার সেদিনের অসহায় অবস্থার কথাটা মনে হয়। 😀

    মোকা-দা'র ফটুক ভালা পাই। 🙂


    হেরে যাব বলে তো স্বপ্ন দেখি নি

    জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)

    খালি শুকনা ছবি দিলেন। সুন্দরী বান্ধবীদের সাথে ফেসবুকে যে ছবিগুলা দিছিলেন ঐগুলার এক আধটা তো এখানে দেয়াই যেত 😉


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন

মওন্তব্য করুন : হক

জবাব দিতে না চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।